ছাত্রলীগ-কৃষকলীগ চট্টগ্রামে কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে

মোঃরাশেদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসের কারণে শ্রমিক সংকটে জমিতে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হওয়া ধান কেটে দিতে কৃষকদের সহযোগিতা করছে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন কৃষকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। মাঠে ধান কেটে দিয়ে তা বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে তারা। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনা অনুযায়ী চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগ, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ বিভিন্ন উপজেলায় এ কার্যক্রম শুরু করেছে। এছাড়া আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের নির্দেশে রাঙ্গুনিয়ায় কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে স্থানীয় কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা।

উত্তর জেলা কৃষকলীগ ও দক্ষিণ জেলা কৃষকলীগের নেতাকর্মীরাও বিভিন্ন এলাকায় কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছেন। উত্তর জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ফটিকছড়ি, মিরসরাইসহ বিভিন্ন এলাকায় কেটে দিচ্ছেন কৃষকের ধান। ফটিকছড়ি উপজেলার লেলাং ইউনিয়নের পাট্টিলাকুল এলাকার এক কৃষকের তিন কানি ও একই ইউনিয়নের দমদমা গ্রামের আরেক কৃষকের দেড় কানি ধান কেটে দেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আনোয়ারা, পটিয়া, সাতকানিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছেন। আনোয়ারা উপজেলায় ডুমুরিয়া গ্রামের অসহায় কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এছাড়া পটিয়া উপজেলার আশিয়া ও সাতকানিয়ার কয়েকটি এলাকায় ধান কেটে দিচ্ছে ছাত্রলীগ। দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের বলেন, বিভিন্ন এলাকায় অসহায় কৃষক ভাইদের পাশে দাঁড়িয়েছি আমরা। যাদের পাকা ধান জমিতে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে তাদের সহযোগিতা করছি আমরা। ধান কেটে দিচ্ছি। বাড়িতে পৌঁছাতেও সহযোগিতা করছি। দক্ষিণ জেলার আওতাধীন সব উপজেলায় এ কার্যক্রম শুরু করেছি আমরা। উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন তপু বলেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনা অনুযায়ী ফটিকছড়ি, মিরসরাইসহ বিভিন্ন এলাকায় কৃষকের ধান কেটে ঘরে তুলতে সহযোগিতা করছে ছাত্রলীগ। মাঠের পাকা ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছে। এখনও সব এলাকায় ধান পাকতে শুরু করেনি। যেসব এলাকায় পেকেছে সেসব এলাকার কৃষকদের সহযোগিতা করছি। উত্তর জেলার আওতাধীন সব উপজেলায় আমাদের এ কার্যক্রম চলবে।

 

এদিকে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও মহানগরের আশেপাশের উপজেলাগুলোতে কৃষকের ধান কেটে দিতে প্রস্তুত রয়েছেন বলে জানান মহানগর ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য মো. মিজানুর রহমান। মিজানুর রহমান বলেন, মহানগরে তেমন কৃষি জমি নেই। তবুও আমরা প্রস্তুত রয়েছি মহানগরের আশেপাশের এলাকাগুলোতে ধান কেটে দিতে। কোনো কৃষক যদি সমস্যায় পড়েন তাহলে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমরা তাদের সহযোগিতা করবো। দক্ষিণ জেলা কৃষকলীগের সভাপতি মো. আতিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা। পটিয়ার আশিয়া, জিরিসহ বিভিন্ন এলাকায় ধান কেটে দিয়েছি আমরা। কৃষকলীগের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কোনো এলাকায় যদি কোনো কৃষক সমস্যায় পড়েন তাহলে তাকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করার জন্য।