চুকনগর বধ্যভূমি পরিদর্শন করলেন মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এম পি

জাহাঙ্গীর আলম (মুকুল), ডুমুরিয়া খুলনা প্রতিনিধি চুক-নগর গণহত্যা ৭১ স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ এবিএম শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে। বুধবার সন্ধ্যা ৬ টায় চুক-নগর বধ্যমিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে সংক্ষিপ্ত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথি মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি বলেছেন,

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না। সেই বাংলার মাটিতে লাফিয়ে ওরা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিকৃত ইতিহাস সৃষ্টি করতে চায়। এদশের মানুষ কোন ভাবেই ওদের যড়যন্ত্র সফল হতে দেবে না। সকল ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে উন্নীত হয়েছে।

তিনি বলেন মহান মুক্তিযুদ্ধে ওইসব পাকিস্তানী দোসররা এদেশের নিরীহ মানুষকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। দীর্ঘদিন পরে হলেও এদেশের মাটিতে ওদের বিচার হয়েছে। এই চুক-নগরের মাটিতে সেদিন যে হত্যাকান্ড ঘটিয়েছিল পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে জঘন্যতম হত্যাকান্ড। তিনি চুক-নগর গণহত্যা ৭১ স্মৃতি বধ্যভূমির উন্নয়নে যা যা প্রয়োজন তা বাস্তবায়ন করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রাণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষ। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান গাজী, এজাজ আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল ওয়াদুদ, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ডাঃ সঞ্জীব দাস, আলহাজ্ব এস এম জিয়াউল ইসলাম, ডুমুরিয়া উপজেলা বীর-মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও সভাপতি ফ্রিডম ফাইটার্স ফ্যামেলী সার্ভিসেস সোসাইটি বাংলাদেশ,

বীর-মুক্তিযোদ্ধা বিমল রায়, সুধাংশ ফৌজদার, এ কে এম আতিয়ার রাহমান, বিকাশ চন্দ্র বিশ্বাস, নুপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সন্তোষ কুমার রাহা, শেখ আবুল কালাম মহিউদ্দীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহনেয়াজ হোসেন জোয়ার্দ্দার,

অধ্যাঃ জি এম ফারুক হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাাফিজুর রহমান দুলু, সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান এ্যাড প্রতাপ কুমার রায়, অধ্যক্ষ এস এম জুলফিকার আলী জুলু, আছফার হোসেন জোয়ার্দার, সরদার শরিফুল ইসলাম, অরিন্দম মল্লিক, কে এম মফিজ প্রমুখ।