চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌ রুটে ৮ ঘন্টা ফেরি চলাচল বন্ধ, দূর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি:  শরীয়তপুর নৌ পথে ঘন কুয়াশার কারণে প্রায় ৮ ঘণ্টা ফেরী চলাচল বন্ধ ছিল। যাত্রীরা পরতে হয়েছে দূর্ভোগে। চট্টগ্রাম থেকে দক্ষিণাঞ্চলগামী বাস, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারের যাত্রীরা প্রচন্ড শীতের মাঝে শিশু কিশোরদের নিয়ে ফেরী ঘাটে মানবেতর ভাবে রাত কাটাতে হয়েছে।

পরে কুয়াশা কাটতে শুরু করলে চাঁদপুর-শরীয়তপুর রুটে ফেরি চলাচল শুরু হয়। ১৮ জানুয়ারি সোমবার বেলা ১১টায় প্রাথমিকভাবে কামিনী নামের ফেরীটি যানবহন নিয়ে হরিণা ঘাট থেকে শরীয়তপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এর আগে ঘন কুয়াশার কারণে চাঁদপুরের হরিণাঘাট-শরীয়তপুরের নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। রোববার রাত ২ টা থেকে কর্তৃপক্ষ ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়।

জানা গেছে, রাতে মেঘনা নদীতে কুয়াশার ঘনত্ব বেড়ে যায়। ফলে নৌ দূর্ঘটনা এড়াতে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। বিআইডব্লিউটিসির চাঁদপুর হরিনাঘাটের ম্যানেজার মো. ফয়সাল আহমেদ জানান, রাত ২ টায় মেঘনা নদীতে আচমকা কুয়াশার ঘনত্ব বেরে যায়। যার কারণে দূর্ঘটনা এরাতে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিল।

কুয়াশার ঘনত্ব সকাল ১১ টায় কমে আসলে ফেরী চলাচল স্বাভাবিক হয়। তবে চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌ পথে ৬ টি ফেরী চলাচল করলে ও ১টি ফেরী নস্ট থাকায় এখন ৫ টি ফেরী নিয়মিত চলাচল করছে। তিনি বরো জানান, কুয়াশার কারণে ফেরী চলাচল বন্ধ রাখা হলে হরিণা ঘাটে প্রায় আড়াইশ ও আলুর বাজার অংশে দেড়শ যানবাহন আটকা পরে।

যানবাহনে আটকা পরার কারণে যাত্রীরা দূর্ভোগে পরতে হয়েছে। ফেরী চলাচল স্বাভাবিক হলে রাতে দূর্ভোগে পরা যাত্রীরা কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে।