চাঁদপুর প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সাথে নবাগত জেলা প্রসাশক অঞ্জনা খান মজলিসের মতবিনিময়

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: : চাঁদপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক (ডিসি) অঞ্জনা খান মজলিস এর সাথে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দের সাথে পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৬ জানুয়ারি) সকালে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে এ সভার আয়োজন করা হয়।

মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন চাঁদপুরের নবাগত জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিস। সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করি এবং চাঁদপুরে কাজ করার সুযোগ দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন,

আপনাদের সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান দেখে ভালো লেগেছে। আরো ভালো লেগেছে সুন্দর ও গুছিয়ে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করার জন্যে। জেলা প্রশাসক আরো বলেন, আমি বিভিন্ন জায়গাতে কাজ করতে গিয়ে শুনতে পেয়েছি নারী কর্মকর্তা কি ঠিকমত দায়িত্ব পালন করতে পারবে?’ আমি নিজেকে কখনও নারী কর্মকর্তা হিসেবে দেখি না, আমি সব সময়ই নিজকে সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে দেখি।

তিনি আরো বলেন, ৩০ লাখ শহীদ ও দুই লাখ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে দেশটি স্বাধীন হওয়ায় আজ আমি ডিসি হতে পেরেছি। জেলা প্রশাসক হচ্ছে দেশের কেন্দ্রীয় সরকারের একজন প্রতিনিধি। আমি সাভারের মেয়ে হলেও ঢাকার বাহিরে কাজ করেছি সুনামের সাথে। নারী হিসেবে দেশের বিভিন্ন স্থানে কাজ করে সাফল্য পেয়েছি। আমার কাজটিই হচ্ছে চ্যালেঞ্জিং।

তাই চ্যালেঞ্জ হিসেবে কাজ করছি। জীবনের প্রথমে চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে অস্ত্র লুটের ঘটনা উদঘাটন করে অস্র উদ্ধার করেছিলাম। তিনি বলেন, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক ব্যাক্তিদের সাথে আমাদের সম্পর্ক আত্মীয়ের মতো। চাঁদপুরের সাংবাদিকরা ইতিবাচক কাজের সাথে জড়িত বলে আমি মনে করি। সাংবাদিকরা প্রশাসনকে সব সময় সহযোগিতা করে।

তাদের সহযোগিতা আমি চাই। পূর্বের ডিসির রেখে যাওয়া কাজগুলো বাস্তবায়নের চেষ্টা করবো। চাঁদপুরের মানুষ সম্পর্কে তিনি বলেন, নদী পাড়ের মানুষ অনেক সহনশীল হয়। সমুদ্র পাড়ের মানুষ হিংস্র হয়। চাঁদপুরের মানুষ আমার দৃষ্টিতে সহনশীলই হবেন এবং তারা আইন শৃঙ্খলার প্রতি শ্রদ্ধাশীল বলে আমি জানতে পেরেছি। তিনি আরো বলেন, কাজ করার ইচ্ছা আছে তার জন্যে এ পদ একটা গুরুত্বপূর্ণ প্লাটফর্ম। এ জায়গা থেকে জনগনের সেবা করার অনেক সুযোগ রয়েছে।

আমি সবসময়ই ইতিবাচক চিন্তা করি। আমার মূল ফোকাস হলো এ এলাকার উন্নয়ন। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে যে পরিকল্পনা রয়েছে, তাকেই আমি এগিয়ে নিয়ে যাবো। পর্যটন নগরী করতে জেলা প্রশাসকের যে দায়িত্ব রয়েছে, আমি তা অবশ্যই পালন করবো। বস্তুনিষ্ঠ ও ইতিবাচক সাংবাদিকতা নিয়ে আপনাদের সহযোগিতা কামনা করছি। এককভাবে ভালো কাজ করা সম্ভব না।

যার যার দায়িত্ব নিজ জায়গা থেকে পালন করলে স্বপ্নের চাঁদপুর গড়ে তুলতে পারবো। স্বপ্নের চাঁদপুর, সুন্দর চাঁদপুর আমি কামনা করছি। মতবিনিময় সভা সঞ্চালনা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান। সভায় বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, সাবেক সভাপতি কাজী শাহাদাত, গোলাম কিবরিয়া জিবন, সিনিয়র সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিলন,

সহ-সভাপতি এএইচএম আহসান উল্লাহ,সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ জালাল চৌধুরী, সাবেক সভাপতি শহিদ পাটোয়ারী, সহ-সভাপতি সোহেল রুশদী, সাবেক সভাপতি শরিফ চৌধুরী, অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেন, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আল ইমরান শোভন, ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি এমএ লতিফ প্রমূখ। এসময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মোহাম্মদ জামাল হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অসীম চন্দ্র বনিকসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভার পূর্বে নবাগত জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিসকে ফুল দিয়ে বরন করে নেন প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দরা। সাথে সাথে জেলা প্রশাসক নিজেও প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দের ফুল দিয়ে বরন করে নেন। সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত করেন সাবেক সাধারণ সম্পাদক এএইচএম আহসান উল্লাহ ও পবিত্র গীতা পাঠ করেন সাবেক সাধারণ সম্পাদক লক্ষন চন্দ্র সূত্রধর।