চাঁদপুরের স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী গাজীপুর থেকে আটক

বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর সদর উপজেলার বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের খেরুদিয়া গ্রামে নবম শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের মামলার প্রধান আসামী শামিম প্রধানিয়া (২২) কে আটক করেছে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ।

শুক্রবার গভীর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আসামী শামিমের বোনের বাসা গাজীপুর জেলার রাজেন্দ্রপুর থেকে চাঁদপুর মডেল থানার এস আই (উপ-পরিদর্শক) মোঃ রাশেদুজ্জামানসহ সংঙ্গীয় সদস্যরা তাকে আটক করে চাঁদপুর নিয়ে আসে। আটক শামিম প্রধানিয়া (২২) সদর উপজেলার বিষ্ণপুর ইউনিয়নের খেরুদিয়া গ্রামের ইসহাক প্রধানিয়ার ছেলে।

গত ৫ এপ্রিল মেয়ের পিতা বাদী হয়ে ৩ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৪। শনিবার আসামীকে আদালতে প্রেরণ করলে ধর্ষণের বিষয়ে শামিম স্বিকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, খেরুদিয়া গ্রামের দিনমজুর ব্যক্তির পালিত কন্যা ও স্থানীয় স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেনীর ছাত্রী সন্ধ্যায় পাটি তৈরীর বেতি আনতে গেলে শামীম প্রধানিয়া নামের যুবক তাকে মুখ চেপে একটি বাগানে নিয়ে যায়।

সেখানে শামীম, শাহাদাত গাজী ও রহিমখান ঐ স্কুল ছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।মেয়েটি চিৎকার দিলে স্থানীয়রা এগিয়ে আসেন। পরে রাত ৯টায় স্থানীয় লোকজন বিষয়টি জানতে পেয়ে অভিযুক্ত রহিম খান কে আটক করে।ধর্ষণের শিকার ওই স্কুল ছাত্রী জানায়, তাকে ধর্ষণ করার সময় তারা মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাসিম উদ্দিন বলেন,

ধর্ষণের ঘটনায় আমরা ৩ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছি।ব্যক্তির পালিত কন্যা ও স্থানীয় স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেনীর ছাত্রী সন্ধ্যায় পাটি তৈরীর বেতি আনতে গেলে শামীম প্রধানিয়া নামের যুবক তাকে মুখ চাপা দিয়ে একটি বাগানে নিয়ে যায়। সেখানে শামীম, শাহাদাত গাজী ও রহিমখান স্কুল ছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এক সময় চিৎকার দিলে স্থানীয়রা এগিয়ে আসেন।

পরে রাত ৯টায় স্থানীয় লোকজন বিষয়টি জানতে পেয়ে অভিযুক্ত রহিম খান কে আটক করে।ধর্ষণের শিকার ওই স্কুল ছাত্রী জানায়, তাকে ধর্ষণ করার সময় তারা মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাসিম উদ্দিন বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় আমরা ৩ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছি।