চাঁদপুরের পুরান বাজারে শহর রক্ষা বাঁধে ভাঙন

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ পুরানবাজার হরিসভার ২৫ মিটার এলাকায় আবারও ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে মেঘনার ভাঙনের মুখে ঝুঁকিতে রয়েছে পুরো এলাকা।
ভাঙন আতংকে স্থানীয় বাসিন্দারা মালামাল সরিয়ে নেয়া শুরু করেছে। চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. বাবুল আখতার জানান, বুধবার রাত ১০টায় পুরানবাজার হরিসভা এলাকায় ভয়াবহ ফাঁটল দেখা যায়।
এ সময় শহর রক্ষা বাঁধের বেশকিছু ব্লক নদীতে বিলীন হয়ে যায়। ২৫ মিটার এলাকাজুড়ে ফাঁটল দেখা দেয়ায় স্থানীয় লোকজনের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, ভাঙন রোধে জরুরী ভিত্তিতে বালিভর্তি বস্তা ফেলা শুরু হয়েছে।
মেঘনা নদীর পানি প্রবল বেগে প্রবাহিত হওয়ার পাশাপাশি সৃষ্ট ঘূর্ণিপাকে হরিসভাসহ পুরানবাজার ব্যবসায়িক এলাকাটি ঝুঁকিতে রয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ বাবুল আক্তার, এন এস আই এর চাঁদপুরের উপ-পরিচালক আজিজুল হক, পৌর পরিষদের প্যানেল মেয়র সিদ্দিক রহমান ঢালী,
চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ নাসিম উদ্দিন, পুরান বাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোঃ মাসুদ, মডেল থানার তদন্ত ওসি হারুনুর রশীদ, অ্যাডভোকেট বিনয় ভূষণ মজুমদার চাঁদপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সহ-সভাপতি তমাল কুমার ঘোষ, নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধ সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ব্যাংকার মুজিবুর রহমান,
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মমতাজ উদ্দিন মন্টু গাজী, পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিমল চৌধুরী পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক আব্দুল মালেক সাহেব সহ আরো অনেকে। রাত পৌনে বারোটার সময় পুরান বাজার হরিসভা ঠোডা এমন স্থানে থাকা বিদ্যুতের মূল্যায়নের খুঁটি ধসে পড়ে।
ওই এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। প্রায় ২৫ মিটার শহর রক্ষা বাঁধের ব্লক দেবে গিয়ে এই ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। শহর রক্ষা বাঁধের হরিসভা এলাকায় কয়েক মাস আগেও ভাঙন দেখা দেয়।
ওই সময় ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে বালিভর্তি বস্তা ফেলা হয়। পুরানবাজার পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মো. মাসুদ বলেন, এলাকাটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় স্থানীয় লোকজনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।