গলায় ফাঁস দিয়ে হাজতির আত্মহত্যা, কারারক্ষী বরখাস্ত

গলায় ফাঁস দিয়ে ধর্ষণ মামলার আসামি আত্মহত্যার ঘটনায় কর্তব্যে অবহেলার কারণে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারের এক কারারক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কারা কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) দিনগত রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়ির জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বনিক।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া কারারক্ষী হলেন মো. কাওছার হোসেন।

জেল সুপার জানান, আত্মহননকারী কারারক্ষী যে কক্ষে ছিলেন, সেখানকার দায়িত্বে ছিলেন কারারক্ষি মো. কাওসার। তার দায়িত্বে অবহেলার কারণে ওই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। এ কারণে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করার পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে, শনিবার ভোররাতে হানিফ খলিফা (৪০) নামের ওই হাজতি কারাগারের শৌচাগারে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। নিজের প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে গত ৩০ সেপ্টেম্বর বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানায় আত্মহত্যাকারী হানিফ খলিফার বিরুদ্ধে তার স্ত্রী একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় গত ১ অক্টোবর থেকে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে হাজতি হিসেবে ছিলেন হানিফ হাওলাদার।

জেলখানার হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইনে থাকা হানিফ খলিফা মশারি কেটে তা দিয়ে রশি বানিয়ে বাথরুমের পানির পাইপের সঙ্গে গলায় লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। মৃত হানিফ খলিফা জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার মধুখালী এলাকার আলী মোহাম্মদ খলিফার ছেলে।