খুলশী গার্ডেন ভিউ হাউজিং সোসাইটির বিভিন্ন প্লটে নিজের নামে সাইন বোর্ড লাগিয়ে দখলে নেবার অভিযোগ মহিউদ্দিন বাচ্চুর বিরুদ্ধে

মোঃ রাশেদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় নগরীর মুরগীর ফার্ম এলাকায় খুলশী মৌজার, আর এস ৫৫৩, পিএস ১৮০ নাম্বার প্লটে সাইন বোর্ড লাগানো রয়েছে মহিউদ্দিন বাচ্চুর নামে। গার্ডেন ভিউ হাউজিং এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হাজি জমির উদ্দিন অভিযোগ করেন, জায়গার মালিকানা সংক্রান্ত কোন ধরনের দলিল বা আমমোক্তার নামা না দেখিয়ে এক প্রকার জোর টিন শেট ঘরসহ জায়গায় থাকা স্থাপনা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছেন আহবায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু। হাজি জমিরের দাবি তিনি জনৈক নজির আহমদ পিতা-মৃত হাজি ফজল আহমেদ এর কাছ থেকে ২৯/০২/২০০৪ সালে ১২৯৯ নং আকমোক্তার মুলে জায়গাটি হাউজিং এ যুক্ত করেন ।
জায়গায় ব্রিক ওয়াল দেয়া আছে। তিনি জানান, ২৫০ টির অধিক প্লট নিয়ে ২০০০ সালে খুলশি গার্ডেন ভিউ নামের আবাসিক প্রকল্পটি চালু হয়। ২০১৫ সালে প্লট মালিকদের নিজ নিজ জায়গা বুঝিয়ে দেয়া হয়। ৮ টি অবিক্রিত প্লটের একটি ৫ কাটার প্লট লোকজন নিয়ে জোর করে দখলে নেবার চেস্টা করেছেন যুবলীগ নেতা মহিউদ্দিন বাচ্চু। পাশের প্লটের মালিক একুশে পত্রিকার সম্পাদনা সহযোগী লাকি আকতার জানান, করোনা পরিস্থিতিতে এভাবে দখল শুরু হবার কারনে তিনি নিজেও শংকিত নিজের প্লটের জন্য। পেশায় সাংবাদিক লাকি আরো জানান, এ আবাসিক প্রকল্পের জায়গা দশ বছর আগেই প্লট মালিকদের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। এখন  এসে কোন দলিল ছাড়াই আমাদের জায়গায় সাইনবোর্ড লাগিয়ে দিচ্ছেন।
বলছেন এখানে  অফিস করবেন৷ ‘ বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয়দের কাছে জানা যায়, দখলকৃত জায়গায়  অফিস নির্মান করবেন মহিউদ্দিন বাচ্চু। জায়গায় ব্রিক ওয়ালের ঘেরাও দেখা যায়। নতুন করে একটি গেট নির্মান করেছেন বাচ্চুর লোকজন। তবে গনমাধ্যমকর্মিদের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালিয়ে যেতে দেখা যায় কিছু যুবককে। জায়গাটির কেয়ারটেকাররা জানান, তাদেরকে ৪০/৫০ জন যুবক এসে তাদেরকে জায়গা থেকে সরে যেতে বলেন। তারা নিজেরা প্রানভয়ে রয়েছেন বলেও জানান প্রতিবেদককে। দখলকৃত জায়গার পাশে রাখা ইটের স্তুপ দেখিয়ে প্রতিবেদককে স্থানীয়রা জানান, ১ লা জুন জায়গায় নিজের লোকজন নিয়ে এসে সাইন বোর্ড স্থাপন করেন মহিউদ্দিন বাচ্চু।
জায়গায় একটি সাইনবোর্ডে লেখা বায়না সুত্রে এ জায়গার মালিক মহিউদ্দিন বাচ্চু। স্থানীয়রা জানান, ৩ জুন বুধবার বিকেলে পুনরায় লোকজন নিয়ে এসে নতুন করে স্থাপনা তৈরির নির্দেশ দিয়ে যান তিনি। সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে তল্লাশী দিয়ে মহিউদ্দিন বাচ্চুর নামে কোন দলিলের খোঁজ মেলেনি। এ দিকে গার্ডেন ভিউ হাউজিং এর বর্তমান সভাপতি ইরশাদ আলী ভুঁইয়া জানান, হাউজিং এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জমির উদ্দিনের নামে কিছু প্লট রয়েছে। এর মধ্যে একটি প্লটে ১ লা জুন একটি পক্ষ সাইন বোর্ড স্থাপন করেছেন। এ সময় তিনি নিজে সেখানে উপস্থিত ছিলেন না জানিয়ে তিনি বলেন, আমি নিজে অসুস্থ। তা ছাড়া দেশের পরিস্থিতিও ভালো না। এসময় আসলে এমন গর্হিত কাজ করা সমীচিন নয়।
এ বিষয়ে জানতে মহিউদ্দিন বাচ্চুকে মুঠোফোন কল দেয়া হলে তিনি জানান, তিনি অনেকগুলি জায়গা ক্রয় করেছেন বিভিন্ন এলাকায়। তবে জমির সাহেবের কোন জায়গায় জোর করে তিনি সাইনবোর্ড লাগান নি। জনৈক আলমগীর থেকে উল্লেখিত জায়গা ক্রয় করে নিয়েছেন দাবি করেন মহিউদ্দিন বাচ্চু। তার দাবি জমির সাহেব নিজে থেকে জায়গাটি দেখিয়ে দিয়েছেন ৷ এই বিষয়ে জানতে অভিযোগকারী জমির উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, লালখান বাজারের একটি অফিসে ডেকে জোর করে জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয় তাকে।
এ সময় মহিউদ্দিন বাচ্চু কোন দলিল প্রদর্শন না করে উল্টো ভয়ভীতি প্রদর্শন করায় তিনি স্থান ত্যাগ করেন। করোনা কালে জায়গা দখল করে নিজের নামে সাইনবোর্ড লাগানো নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যর সৃস্টি হয়েছে৷ প্রসঙ্গত, গত এক দশকের বেশি সময় ধরে নগরীতে বিলবোর্ড ব্যবসার অন্যতম নিয়ন্ত্রক আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু।