খুলনায় রেড জোনে বিধি নিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি অমান্যকরণের অপরাধে মোবাইল কোর্টের জরিমানা আদায়

জাহাঙ্গীর আলম (মুকুল), ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধিঃ খুলনা জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, মোহাম্মদ হেলাল হোসেন মহোদয়ের নির্দেশনায় আজ রেড জোন ঘোষিত খুলনার রূপসা উপজেলার আইচগাতী ইউনিয়ন এবং খুলনা মহানগরীর ১৭ নং ও ২৪ নং ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়।

উপর্যুক্ত ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডসমূহে সম্প্রতি করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষিতে ২৩ জুন, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ তারিখে খুলনা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, কর্তৃক জারিকৃত গণবিজ্ঞপ্তি এর আদেশসমূহ যথাযথভাবে প্রতিপালিত হচ্ছে কিনা, ১৭ নং ও ২৪ নং ওয়ার্ড ব্যতীত অন্যান্য ওয়ার্ডে নতুন নির্দেশনা (রবিবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে এবং সপ্তাহের অন্য চার দিন বন্ধ থাকবে) প্রতিপালিত হচ্ছে কিনা, পথচারী ও দোকান-পাটে ক্রেতা-বিক্রেতাগণ মাস্ক পরিধানসহ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে কিনা, সরকার ঘোষিত সময়ের পরও দোকান-পাট খোলা রয়েছে কিনা, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ব্যতীত অন্যান্য পণ্যের দোকান, বিপণি-বিতান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হচ্ছে কিনা এবং করোনা পরিস্থিতিতে সীমিত পরিসরে যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতে এই মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়।

এসময় মাস্ক পরিধান না করাসহ স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করার দায়ে, গণবিজ্ঞপ্তির আদেশ লঙ্ঘন করে মোটসাইকেলে একাধিক ব্যক্তি আরোহনের দায়ে, সরকার নির্দেশিত সময়ের পরেও দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার দায়ে এবং রেড জোন ঘোষিত এলাকায় গণ বিজ্ঞপ্তির আদেশ অমান্য করার দায়ে ৯টি মামলায় ১০,৮০০/- (দশ হাজার আটশত) টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়াও কর্তব্যরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ করোনা আক্রান্ত রোগীর বাড়ি লকডাউন করেন।

মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন খুলনা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইমরান খান, মোঃ তাহমিদুল ইসলাম এবং দেবাশীষ বসাক।

মোবাইল কোর্টের অভিযানে সহযোগিতা করেন পুলিশের সদস্যবৃন্দ। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধসহ অন্যান্য অপরাধ নিবারণে জেলা প্রশাসনের এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে।