খালিয়াজুরীতে মামলার ৩ মাসেও আসামী গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ

জাহাঙ্গীর আলম, নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ  নেত্রকোণার খালিয়াজুরী উপজেলার মেন্দিপুর ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রামে পূর্ব শত্রুতা জেরে পরিকল্পিত ভাবে আব্দুল হামিদের বাড়িতে গিয়ে হামলা করে প্রতিপক্ষরা।

সেই হামলায় আহত হয় আব্দুল হামিদের গর্ভবর্তী মেয়ে আইরিন, চিকিৎসা অবস্থায় গর্ভবর্তী আইরিনের পেটের সন্তান মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় খালিয়াজুরী থানায় মামলা হলে একজন আসামীকে গ্রেফতার করেন খালিয়াজুরী থানা পুলিশ, ঘটনার ৩মাস পেরিয়ে গেলেও অন্য আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

আসামী গ্রেফতার না হওয়ায় শঙ্কা নিয়ে জীবন যাপন করছেন আহতরা। এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, জেলার খালিয়াজুরী উপজেলার মেন্দিপুর ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রামে ২৮ মার্চ সকাল ১০ ঘটিকায় আব্দুল হামিদের বাড়িতে গিয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরে সবুজ ও কামাল সহ তাদের দলবল মিলে দেশীয় অস্ত্র লোহার রড, রামদা, বল্লম ও লাঠি সোটা নিয়ে আব্দুল হামিদের বাড়িতে গিয়ে নারী পুরুষ সহ কয়েকজনকে আহত করে, গুরুত্ব আহত আব্দুল হামিদের মেয়ে গর্ভবর্তী আইরিন।

আইরিনের চিকিৎসা অবস্থায় গর্ভবর্তী সন্তান মৃত্যু হয়। আজ জুন ১ তারিখ, আহতদের বাড়িতে গিয়ে রাত ৮ টার দিকে আসামী রুকুম ও তার ভাই ইদ্রিস, ছত্তার, তার ছেলে আমিন, আব্দুল হামিদের উপর আবার হামলা চালায়। আব্দুল হামিদ ও তার ভাই শহীদ মিয়া বলেন, ওদের ভয়ে আমরা এলাকা ছাড়তে হবে, কারণ তারা আমাদেরকে বারবার হামলা করেছে, আমরা প্রশাসনের আশ্রয় নিয়েও রক্ষা পাইনি।

অসহায় দিনমজুর আব্দুল হামিদের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ছয় মেয়ে নিয়ে আমি হাওরের মাজে গ্রামের এককোনায় মানবেতর জীবনযাপন করছি, খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছি, দিনদুপুরে আমার গর্ভবর্তী মেয়েটাকে মারধর করে আমার মেয়ের গর্বের সন্তানকে বাঁচাতে পারলামনা। এখন আমার উপর বারবার হামলা করেছে। আমি কই গেলে শান্তি পাবো।

এ বিষয়ে খালিয়াজুরী থানার অফিসার ইনচার্জ এ টি এম মাহমুদুল হকের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমরা আসামীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে তৎপর আছি। আর বাদীর বাড়িতে হুমকি বিষয়ে জানতে চাইল বলেন এ বিষয়ে আমার জানা নেই যদি অভিযোগ পায় তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।