ক্ষুদ্রঋণের মাধ্যমে দারিদ্র্য লালন-পালন হয়:প্রধানমন্ত্রী

ক্ষুদ্রঋণের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন হয়না বরং  এটির লালন-পালন হয় বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় তিনি বলেন সরকারের প্রতিটি পদক্ষেপের লক্ষ্য-টেকসই উন্নয়ন। সরকারের গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মসূচির ফলে বর্তমানে দারিদ্র্যের হার ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। আগামীতে এটিকে ১৬ শতাংশে নামিয়ে আনতে চাই। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) আয়োজিত উন্নয়ন মেলা ২০১৯-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

বহুমুখী পরিকল্পনার মাধ্যমে মানুষের জীবন মানোন্নয়নে সরকার কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একসময় ক্ষুদ্রঋণ আমরা সমর্থন দিয়েছিলাম। ভেবেছিলাম দারিদ্র্য বিমোচন হবে। পরে দেখলাম দারিদ্র্য বিমোচন না হয়ে দারিদ্র্য লালনপালন করা হয়।’

এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন,  ক্ষুদ্রঋণ- এটা স্বাধীনতার পরপরই জাতির পিতা শুরু করেছিলেন। যদিও আমাদের দেশে কেউ কেউ ক্ষুদ্রঋণের প্রবক্তা সেজে বিশ্বে ভালো নাম-টামও করে ফেলেছেন। দেখা যায়, হয়তো নিজে নাম কামিয়েছেন, কিন্তু দেশের মানুষ ততটা সুফল পেতে পারেনি। এটা হলো বাস্তব।

কীভাবে মানুষকে দারিদ্র্যসীমা থেকে বের করে আনবেন, সেই পরিকল্পনাটাই জাতির পিতা নিয়েছিলেন। আর তাই ক্ষুদ্রঋণ বিষয়টি স্বাধীনতার পরপরই জাতির পিতা শুরু করেছিলেন বলে জানান সরকার প্রধান।

এসময় তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন সময় সংবাদমাধ্যমে এসেছে, বিভিন্ন এনজিওর ক্ষুদ্রঋণের চড়া সুদ ও চক্রবৃদ্ধি সুদের বোঝা বইতে না পেরে নিঃস্ব হওয়া, এমনকি ভিটেমাটি, হাঁড়িপাতিল বিক্রি করে ঋণ পরিশোধ করতে হয়েছে অনেককে। একারণে দারিদ্র্য বিমোচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময় ক্ষুদ্রঋণের পরিবর্তে ক্ষুদ্র সঞ্চয়ের ওপর গুরুত্ব দিয়ে আসছেন। এর জন্য সরকারও নামমাত্র সার্ভিস চার্জে বিভিন্ন সহযোগিতা দিচ্ছে।

এনজিওগুলো যাদের টাকা দেবে, তাদের কাছ থেকে পাঁচ শতাংশের বেশি সার্ভিস চার্জ নিতে পারবে না বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

এই অনুষ্ঠানে এ বছর পিকেএসএফ-এর আজীবন সম্মাননা পান সাবেক কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী। তার হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। সভাপতিত্ব করেন পিকেএসএফ চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিকেএসএফ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ।