ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলার এক বছর আজ

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলায় নিহতদের স্মরনে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় মসজিদ প্রাঙ্গনে। এতে সব ধর্মের মানুষ অংশ নিয়েছেন। অবশ্য করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে সীমিত পরিসরের আয়োজনে নিহতদের স্মরণ করা হয়।

দিনটি উপলক্ষে দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা অর্ডান বলেন, মসজিদে হামলার পর দেশটির মৌলিক বিশ্বাসের পরিবর্তন হয়েছে।

হামলার শিকার ‘আল-নূর’ মসজিদের কাছেই হর্ণক্যাসেল ময়দানে স্মরণসভা হওয়ার কথা ছিল। দু’দিন ময়দানে নামাজের জামাত ও বিশেষ দোয়ার আয়োজন করার কথা ভাবা হয়েছিল। তবে, ছোট পরিসরে জুমার নামাজ আদায় হলেও বিশ্বজুড়ে কোভিড নাইনটিনের বিস্তার ঘটায় বাতিল হয়েছে রোববারের সমাবেশ।

একারণে, ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে আল-নূর এবং লিনউড মসজিদের সামনে নিহতদের স্মরণ করছেন কিউইরা। অনেকেই সম্প্রীতির অংশ হিসেবে প্রদর্শন করছেন দেশটির ঐতিহ্যবাহী ‘হাক্কা ড্যান্স’। ভুক্তভোগী পরিবারগুলোকে সান্তনা দিচ্ছেন ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সবাই। গেলো বছর, ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে শ্বেতাঙ্গ বন্দুকধারী ব্র্যান্টন ট্যারন্টের এলোপাতাড়ি গুলিতে প্রাণ হারান পাঁচ বাংলাদেশিসহ ৫১ জন।

হামলায় বেঁচে যাওয়া তেমেল আতাকোচুগু বলেন, ক্ষোভের তুলনায় আমাদের দুঃখটা বেশি। কারণ, দিনটাই আবেগপ্রবণ। সকালে ঘুম ভেঙ্গেই চিন্তা করছিলাম, এখন ৮টা বাজে। মাত্র পাঁচ ঘণ্টা পরই, গেলো বছর আমি ৯টি বুলেটে আহত হই। প্রাণ হারান নামাজরত মুসলিমরা।