কোম্পানীগঞ্জে কোরআনে হাফেজকে পিটিয়ে হত্যা আটক ৬

হাসান ইমাম রাসেল, নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে গাড়ি ভাড়া নিয়ে বাক বিতন্ডায় প্রকাশ্যে পিটিয়ে এক কোরআনে হাফেজকে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় মো. ওমর (১৮), নামে আরও একজন গুরুত্বর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পরবর্তীতে তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে হামলাকারী ৬ সদস্যকে আটক করে পুলিশ।

শুক্রবার (৮ এপ্রিল) রাত ৮টার দিকে উপজেলার রামপুর ইউনিয়ের ২নং ওয়ার্ডের কেজি রোডে এ ঘটনা ঘটে। পরে তাকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে রাত দশটার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নিহতের নাম শেখ জাহেদ (১৮), সে ওই ওয়ার্ডের মুহরীরটেক এলাকার জয়নাল আবেদীন সারেং বাড়ির মো. রফিক উল্যার ছেলে। নিহত জাহেদ একজন কোরআনে হাফেজ এবং ইলেট্রিক মিস্ত্রী ছিল।

নিহতের মামা রেজাউল হক সোহাগ জানান, পূর্ব শক্রতার জের ধরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একই ওয়ার্ডের হৃদয় গ্রুপের সদস্য আমির হোসেন, নূর হোসেন, রাসেদ, হৃদয়, অপুসহ ১৫ থেকে ২০জন প্রকাশ্যে পিটিয়ে জাহেদকে হত্যা করে। এ ছাড়াও আগে থেকে হামলাকারী এলাকায় বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল।

হামলাকারী হৃদয়ের ভাই পুলিশ হেফাজতে বলে তার ভাই হৃদয় ও নিহত জাহেদ লকডাউন চলাকালে ঢাকা থেকে ট্রাকযোগে দেশে আসে। সেখানে গাড়ি ভাড়া হৃদয় দিয়ে দেয় পরবর্তিতে এলাকায় নিহত জাহিদের কাছে গাড়ি বাড়ার টাকা নিয়ে বাকবিতণ্ডা হয় ।তারই প্রেক্ষিতে শুক্রবার সন্ধ্যায় হৃদয় দলবল নিয়ে জাহিদের উপর হামলা চালায়।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আরিফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হত্যাকান্ডের সঠিক কারণ অনুসন্ধান ও হত্যাকারীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নিহতের লাশ নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। পরবর্তীতে পুলিশ এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।