কোটালীপাড়ায় মিথ্যা মমলার প্রতিবাদে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন

জেমস বাড়ৈ, কোটালীপাড়া প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেল। আজ মঙ্গলবার সকাল ১১টায় উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কোটলীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন,গত ২৭ শে আগষ্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে উপজেলার রাতাল গ্রামের বাসিন্দা আঃকাদের মিয়া এবং তাঁর পুত্র মো: শওকত আলিকে নিয়ে আমরা একটি পোষ্ট দেই।

সেখানে ছাত্র ও বিভিন্ন পেশার মানুষ এই পোষ্টটি নিজ নিজ আইডি থেকে পোষ্ট করেন। একই পোষ্ট কোটালীপাড়া ছাত্রলীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেত্রীবৃন্দ শেয়ার ও কপি করে নিজ নিজ ফেসবুক আইডি থেকে পোষ্ট করেণ।৩/৪ ঘন্টা পর্যন্ত পোষ্টটি ফেসবুকে ভাসতে দেখা যায়।

আঃকাদের মিয়া ও তার সন্তান শওকত আলিকে নিয়ে রাজাকার ও রাজাকারের সন্তান বলে করা পোষ্টটি দেখতে পেয়ে পরের দিন( ২৮ আগষ্ট)তারা একটি পাল্টা পোষ্ট দেন এবং ১লা সেপ্টেম্বর ঢাকার বিজ্ঞ সাইবার ট্রাইবুনালে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রনালয়ে যুগ্মসচিব মোঃ শওকত আলি বাদী হয়ে কোটালীপাড়া পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি ,সাধারণ সম্পাদক সহ ১৩জন নেতাকর্মীকে আসামী করে ২০১৮ এর ২১,২৪,২৫,২৯এবং ৩৫ ধারায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ২১৪নং একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন।

পরবর্তীতে স্থানীয় একটি কুচক্রী মহলের পরামর্শে ১১ই সেপ্টম্বর উপজেলার রাতাল গ্রামের সফিজউদ্দিন মাদ্রাসায় ঔ পোষ্টের বিরুদ্ধে আঃকাদের মিয়ার ছেলে প্রকৌশলী আলী আজগর সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে প্রকৌশলী আলিআজগর কতিপয় ছাত্র নামধারী বলে গোটা ছাত্রলীগকে হেয়প্রতিপন্ন করেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বাদী হয়ে শওকত আলীর করা মিথ্যা হয়রানীমূলক মামলা দায়ের ও তার ভাই আলিআজগরের করা সংবাদ সম্মেলনে গোটা ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তিব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কোটালীপাড়া উপজেলার ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি রাসেল শেখ, পৌর সভাপতি চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটন,সাধারণ সম্পাদক আলিউজ্জামান জামির,সহ-সভাপতি সাজ্জাদ সুমন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের কোটালীপাড়া শাখার সভাপতি ফজলুর রহমান দীপু , সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের কোটালীপাড়া শাখার সাধারণ সম্পাদক বুলবুল আহম্মেদ হাজরা।