কুড়িগ্রাম পানি কমলেও দুর্ভোগ কমেনি বন্যা দুর্গতদের

মজাহারুল ইসলাম মিলন, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:  কুড়িগ্রাম ব্রহ্মপুত্র ও ধরলার পানি ধীর গতিতে কমতে থাকায় জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্ততির কিছুটা উন্নতি হয়ছে। নদ-নদীর তীরবর্তী চরাঞ্চলে ও নিম্নাঞ্চলের ঘর বাড়ি থেক পানি নামতে শুরু করলেও দুর্ভাগ কমেনি বন্যা দুর্গতদের। চলমান করোনা ও বন্যা পরিস্তিতিতে হাতে কাজ না থাকায় খাদ্য সংকটে পড়ছেন তারা।

এ অবস্থায় সরকারী বেসরকারী সহযোগীতার দিকে তাকিয়ে আছেন হতদরিদ্র পরিবারগুলা। কুড়িগ্রামে সোমবার সকাল ধরলা নদীর পানি ৩০ সেটিমিটার কমে গিয়ে বিপৎসীমার ২২ সে.মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে । ব্রহ্মপূত্র নদের পানি নূনখাওয়া পয়েট ২৫ সে.মিটার কম গিয়ে বিপৎসীমার ২০ সে.মিটার নীচ দিয়ে এবং চিলমারী পয়টে ২২ সে.মিটার কম গিয়ে বিপৎসীমার ৯ সে.মিটার নীচে দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

অপরদিকে তিস্তা নদীর পানি ১৫ সে.মিটার কমে কাউনিয়া পয়টে বিপৎসীমার ৩৫ সে.মিটার নীচ দিয় প্রবাহিত হচ্ছে। ক্রমাগত পানি কমতে থাকায় বাড়িঘরে ফিরতে শুরু করছে বানভাসী মানুষজন। বন্যা কবলিত এলাকায় শিশু ও গবাদি পশুর খাদ্য সংকট নিয়েও বিপাকে পড়ছেন বানভাসী মানুষরা। এসব এলাকার রাস্তা-ঘাট পানিতে তলিয়ে থাকায় বিছিন্ন রয়েছ যোগাযোগ ব্যবস্থা।

এদিকে নিম্নাঅঞ্চল এখনো পানি জমে আছে। পানিত নিমজ্জিত কৃষকের ফসল এখন মাথাচারা দিতে শুরু করছে। চলতি বন্যায় জেলায় ৯হাজার ৭৮৯ হেক্টর জমির ফসল বিনিস্ট হওয়ার আশংকা করছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ। এরমধ্যে বোরো ধানের বীজতলা ৫৩২ হেক্টর, আউশ ধান ১ হাজার ৯৫৫ হেক্টর, শাক সবজি ৮৬০ হেক্টর, তিল ৩০২ হেক্টর, কাউন ২০ হেক্টর, চিনা ১৪০ হেক্টর, মরিচ ১৪০ হেক্টর এবং পাট ক্ষেত ৫ হাজার ৮৪০ হেক্টর।