কুমিল্লার উত্তরে হট লাইনে কল দিলেই সমস্যার সমাধানে এগিয়ে আসছে ছাত্রলীগ

এম এ বাশার কুমিল্লা ( উত্তর) প্রতিনিধি: মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দেখা দিয়েছে কৃষি শ্রমিকের সংকট। বাতাসের সাথে পাকাধান মাঠে ঢেউ খেললেও তা কেটে ঘরে তোলার মতো সামর্থ অনেক কৃষকেরই নেই। এমন কৃষকদের সহযোগিতার জন্য এগিয়ে এসেছে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ। চালু করেছে আপনার কৃষক নামের একটি হট লাইন নাম্বার। অসহায় কৃষকদের হটলাইন নাম্বারে ফোন করে সহযোগিতা নেওয়ার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারণা চালানো হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার জেলার দেবীদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের নোয়াবগঞ্জ গ্রামে বিধবা কৃষক সহ কয়েকজন কৃষকের দুই একরের বেশি পাকা ধান কেটে সেগুলো মাড়াই করে বস্তায় ভরে কৃষকের বাড়িতে পৌছে দিয়েছে জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।এর আগেও উত্তর জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জেলার বিভিন্ন এলাকায় কৃষকের ধান কেটে মাড়াই করে কৃষকের বাড়িতে পৌছে দেয়। মহামারি করোনার প্রভাবে এমনিতেই বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। কিছুদিন আগে উত্তর জেলা ছাত্রলীগের হ্যালো ছাত্রলীগ নামের সেবা কার্যক্রম চালু করে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে যা বর্তমানে চলমান রয়েছে। করুণা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত হ্যালো ছাত্রলীগ সেবা কার্যক্রম চলমান থাকবে বলে জানা গেছে। হ্যালো ছাত্রলীগ নামের নির্ধারিত ফোন নাম্বারে কল করলেই অসহায়দের নাম-ঠিকানা রেজিস্ট্রি করে পরবর্তীতে ওই পরিবারে খাদ্যসহায়তা সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে উত্তর জেলা ছাত্রলীগ। বর্তমানে তিতাস, দেবিদ্বার, মুরাদনগর, চান্দিনা দাউদকান্দি ও বাঙ্গরা বাজার থানায় হ্যালো ছাত্রলীগ কার্যক্রমটি পরিচালিত হচ্ছে। প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ জন অসহায় গরীব ও নিম্নআয়ের মানুষ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সহযোগিতা ও ত্রাণ সামগ্রী পাচ্ছেন।

হ্যালো ছাত্রলীগ নামের সেবা কার্যক্রমের মাধ্যমে সর্বমহলে প্রশংসিত হওয়ার পর বর্তমানে উত্তর জেলা ছাত্রলীগ আপনার কৃষক নামে আরেকটি হট লাইন নাম্বার চালু করেছে। যেখানে দিনমজুর ও অসহায় কৃষকদের ধান কেটে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। যারা কৃষি শ্রমিক অথবা অর্থাভাবের কারণে জমির পাকা ধান কাটতে পারছেন না তাদেরকে আপনার কৃষক নামের কর্মসূচি থেকে সেবা নেওয়ার জন্য একটি হটলাইন নাম্বার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করে দেয়া হয়েছে। সেখান থেকে কৃষকেরা নাম্বার সংগ্রহ করে হট লাইনে কল করছেন। দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন ছাত্রলীগ কর্মী ওই কৃষকের নাম ঠিকানা রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করে। পরবর্তীতে রেজিস্টার অনুযায়ী ধান কেটে মাড়াই করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এই ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু কাউছার অনিক এর নেতৃত্বে প্রায় একশত ছাত্রলীগ নেতাকর্মী উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের নোয়াবগঞ্জ গ্রামের কৃষকদের ২১০ শতক জমির পাকা ধান কেটে মাড়াই করে দিয়েছন।

মরহুম মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস মিয়ার বিধবা স্ত্রী রোকেয়া বেগম জানান, কৃষি শ্রমিকের অভাবে তার ৬০ শতক জমির পাকা ধান কেটে বাড়িতে তুলতেই পারছিলেন না। ছাত্রলীগের ফোন নাম্বারে কল করার পর তারা এসে জমি থেকে তার ধান কেটে মাড়াই করে দিয়ে গিয়েছেন। ছাত্রলীগের ছেলেদের কারণে তার অনেক উপকার হয়েছে। তা না হলে ধান কেটে মাড়াই করতে তার অনেক কষ্ট হতো।
কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্র, লীগের সভাপতি আবু কাউছার অনিক জানান, করোনা ভাইরাসের কারনে ধান কাঁটার শ্রমিক সংকটের কারনে কৃষকেরা সময় মত ধান কাঁটতে পারছে না। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সংসদ সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের মানবিক নির্দেশে এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের উৎসাহ উদ্দীপনায় কৃষকদের ধান কেটে মাড়াই করে দেয়ার জন্য উত্তর জেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে এ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এছাড়াও আমরা হ্যালো ছাত্রলীগ হট লাইন নাম্বার চালু রেখেছি, আজ ১৫ দিন পুর্বে থেকে, প্রতিটি থানায় ২০ থেকে ২৫ জন অসহায় মানুষ খাদ্যসামগ্রী ও ত্রাণ পাচ্ছেন। কৃষকদের পাশে দাড়ানোর উদ্দেশ্যে ‘আপনার কৃষক’ নামের আরেকটি হটলাইন নাম্বার চালু করা হয়েছে। অসহায় ও কৃষকদের হটলাইনে কল দিয়ে সেবা নেয়ার আহ্বান জানান।