কিন্ডারগার্টেনের কক্ষ থেকে শিক্ষার্থীর মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় প্রেমিক আটক; খাল থেকে মস্তক উদ্ধার

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলায় নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে হত্যা করে লাশ স্কুলের কক্ষে রেখে দিয়েছিল প্রেমিক নামক ঘাতক। লাশ উদ্ধারের পর ঐ ছাত্রির প্রেমিক সাইফুল কে রাতেই পুলিশ আটক করেছে।

ঘাতকের দেখানো ও স্বীকাররুক্তি মুতাবেক স্হান থেকে মস্তক উদ্ধার করেছে পুলিশ। খন হওয়া ওই ছাত্রীর নাম শারমিন আক্তার কাকলী। সে ইসলামাবাদের মমরোজকান্দি সপ্তমগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী। তার পিতার নাম বজলু বেপারি।

উল্লেখ্য গত ২৮ মার্চ সকাল সাড়ে আটটায় শারমিন আক্তার কাকুলি সুজাতপুর বাজারের যাবার কথা তার মা রোকেয়া বেগমের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। এ যাওয়াই কাকুলির জীবনের শেষ যাওয়া হবে হয়তো তার জানা ছিলনা।

কাকুলির প্রেমিক সাইফুল ইসলাম কাকুলিকে হয়তো ফুসলিয়ে অক্সফোট কিণ্ডার গাটেনে নিয়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষন করে তার পর তার মস্তক শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন তরে সুজাত পুর বাজারের তৃপ্তি হোটেলের পিছনের খালে ফেলে দিয়েছে।

লাশ উদ্ধারেরর পর মতলব উত্তর থানা পুলিশ সাইফুল কে আটক করে। ব্যাপক জিঞ্জাসাবাদ করলে সাইফুল স্বিকার করে কাকুলি হত্যার বিষয়টি। ঘাতকের স্বিকারোক্তিতে বৃহস্পতিবার সকালে সুজাতপুর বাজারের তৃপ্তি হোটেলের পেছনের খাল থেকে কাকুলির মস্তক উদ্ধার করেছে মতলব উত্তর থানা পুলিশ।

উল্লেখ্য ২২এপ্রিল সকালে একদল কিশোর অক্সফোট কিন্ডাটার গাডেন স্কুল মাঠে ক্রিকেট খেলতে যায়। খেলা করাবস্হায় তাদের বলটি ব্যাটের আঘাতে ঐ স্কুল কক্ষে চলে যায়। বল কুড়িয়ে আনতে গেলে কিশোরেরা গলা কাটা লাশ দেখতে পেয়ে স্হানিয়দের জানালে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে প্রেরন করে। ময়নাতদন্ত শেষে কাকুলির লাশ পারিবারিক কবরস্হানে দাফন করা হয়েছে।