কসবায় শ্বাসকষ্টজনিত কারণে যুবকের মৃত্যু

বাবুল সিকদার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি: ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবায় করোনা উপসর্গ নিয়ে এক যুবকের মৃত্যুতে এলাকায় করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। একটি গ্রাম লকডাউন করে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার সৈয়দাবাদ গ্রামের মৃত আলী আজমের ছেলে শরীফুল ইসলাম রনি (২৮) শ্বাসকষ্টজনিত কারণে মারা যান।

তিনি স্থানীয় বাদৈর সাবের সাদক পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার মৃত্যুর পর স্থানীয়দের মাঝে করোনা আতংক ছড়িয়ে পড়লে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের লোকজন এসে নমুনা সংগ্রহ করেছেন। এ ঘটনায় উপজেলার সৈয়দাবাদ গ্রামকে লকডাউন ঘোষণা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। স্থানীয়রা জানান, শরীফুল ইসলাম রনি ছোটকাল থেকেই শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় আক্রান্ত ছিলো। গত কয়েকদিন যাবত শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যায় ভুগছিলেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে হঠাৎ করে তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। পরে তাকে তার পরিবারের লোকজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরিবারের ধারনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার সময় পথেই তার মৃত্যু হয়। শ্বাসকষ্ট জনিত মৃত্যু হওয়ায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে মনে করে স্থানীয়দের মাঝে আতংক বাড়তে থাকে। পরে স্থানীয়রা উপজেলা প্রাশসন, উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সহ বিভিন্ন দপ্তরে বিষয়টি অবহিত করলে রাত ৮টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে’র ডাঃ অনিক ইসলামের নেতৃত্বে একটি দল তার বাড়িতে এসে রনিসহ পরিবারের লোকজনের নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যান।

পরে সাড়ে ১০ টায় উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ উল আলম ও অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ লোকমান হোসেন আসেন ওই গ্রামে এবং রাতেই তাকে দাফন করার নির্দেশনা দেয়া হয়। রাত ১১ টায় গ্রামটিকে লক ডাউন করার ঘোষণা দেন উপজেলা প্রশাসন। কসবা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ উল আলম বলেন, স্থানীয়ভাবে জানা গেছে শরীফুল ইসলাম রনি শ্বাসকষ্টজনিত উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে। খবর পাওয়ার পর হাসপাতাল থেকে নিহতের বাড়িতে গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মৃতের বাড়ি এবং গ্রামটিকে লকডাউন করা হয়েছে। ফলাফল নেগেটিভ আসলে লকডাউন থাকবেনা।