কলেজছাত্রের কব্জি কেটে দিল প্রতিপক্ষের লোকজন!

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে একটি হত্যা মামলার আসামিকে গ্রেফতার করার জের ধরে বাদীর বাড়িতে তাণ্ডব চালিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ সময় ওই মামলার বাদীর ছোট ভাই কলেজছাত্র রনিকে কুপিয়ে হাতের কবজি দ্বিখণ্ডিত করে ফেলে হামলাকারীরা। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত রনির ভাই মো. রাজীব মিয়া জানান, “আট বছর আগে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে ১৫ থেকে ২০ জন আমার বাবা আব্দুর রবকে পিটিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় বড় ভাই মাঈনুদ্দিন মিয়া মামলা করেন। আট বছরে সাদ্দামসহ অনেকেই মামলার অভিযোগপত্র থেকে তাদের নাম বাদ দিয়ে দেয়। পলাতক ছিল দুই ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল্লাহ ও সাইফুল্লাহ। শনিবার পুলিশ সাইফুল্লাহকে গ্রেপ্তার করে।”

এ ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি গ্রামে আট বছর আগে খুন হন রব মিয়া। এ ঘটনায় মামলা করেন নিহতের ছেলে মাঈন উদ্দিন। শনিবার ওই মামলার এক আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে  ১৫-১৬ জনের একটি গ্রুপ বাদীর বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় মামলার বাদী মাঈন উদ্দিনের ঘরে ঢুকে মাঈন উদ্দিন, তার স্ত্রী, ছোট ভাই মোহাম্মদ রনি ও মা জাহানারা বেগমকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

অভিযোগ সম্পর্কে ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম , “এ ব্যাপারে আমি কিছু জানেন না বলে দাবি করেছেন । তিনি বলেন এমপি (নজরুল ইসলাম বাবু) সাহেবের বাড়িতে ওনার দাদার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠান ছিল। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত তার কাছেই ছিলাম।”

এসময় তিনি আরো দাবি করেন, “যাদের নাম এসেছে তারা কেউ ছাত্রলীগ করে না। শুধু শুধু ছাত্রলীগকে বদনাম করা হচ্ছে। তাছাড়া ওর বাবার হত্যার ঘটনায় আমার নামে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়। সব অভিযোগ মিথ্যা।”

এদিকে বুধবার হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়ের করেছেন আহত রনির বোন জোৎস্না বেগম।

এ ঘটনার ২ দিন হলেও বুধবার বিকাল পর্যন্ত আসামিদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

অপরদিকে আড়াইহাজার থানা পুলিশের ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, হত্যা মামলার আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করায় বাদীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে কয়েকজনকে আহত করা হয়েছে। আহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে দায়ের করা অভিযোগটি মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে। তদন্ত করে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।