কলাপাড়ায় করোনা আতংকে শিশুসহ অবরুদ্ধ একটি পরিবার

আনোয়ার হোসেন আনু, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় করোনা সংক্রমনের আতংকে ঢাকার গাজীপুর থেকে ভাইয়ের বাড়িতে বেড়াতে আসায় কাটার বেড়া দিয়ে একটি পরিবারকে ঘরের মধ্যে আটকে করে রেখেছে গ্রামবাসী।

মঙ্গলবার রাতে আতংকিত গ্রামবাসী নিজেদের সুরক্ষায় এমন বেড়া দিয়েছে বলে জানান। কুয়াকাটা নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির সামনে সমুদ্র সৈকত লাগোয়া পাঞ্জুপাড়া গ্রামে এঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় এলাকা জুড়ে আতংক ছড়িয়ে পরেছে।

সরেজমিনে জানা গেছে, পাঞ্জুপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শাহীন (২৯) এর বোন শারমিন স্বামী মোস্তফার সাথে ঝগড়া করে ঢাকার গাজীপুর কোনা বাড়ি থেকে শিশু সন্তান নিয়ে সোমবার সন্ধায় ভাইয়ের বাড়িতে আসে। এখবর পেয়ে গ্রামবাসীদের মধ্যে করোনা আতংক ছড়িয়ে পরে। আতংকিত গ্রামবাসীরা একত্রিত হয়ে ঐ বাড়ির চারপাশে কাটা ও তালপাতার বেড়া দিয়ে ঘরে থেকে বের হবার সব রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে।

পাঞ্জুপাড়া গ্রামের বাসিন্দা কুদ্দুস বলেন, শারমিন তার স্বামীর সাথে টাকা পয়সা নিয়ে ঝগড়া করে শিশু পুত্রকে নিয়ে ভাইয়ের বাড়িতে এসে ওঠে। শারমিনের শরীরে তার স্বামী কর্তৃক মারধরের চিহ্ন রয়েছে। কুদ্দুস আরো বলেন, গাজীপুর থেকে আসায় শারমিনের শরীরে করোনা ভাইরাস থাকতে পারে এমন আশংকা থেকে তারা গ্রামবাসীরা মিলে ঐ বাড়িটির চার পাশে বেড়া দিয়ে আটকে দিয়েছে। নিজেদের সুরক্ষিত রাখতেই তারা এমনটা করেছে বলে দাবী করেন তিনি।

এবিষয়টি তারা পুলিশকে অবহিত করেছেন বলে গ্রামবাসীরা সাংবাদিকদের জানান। মহিপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মনিরুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, এবিষয় কেউ তার কাছে জানায়নি। খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান তিনি।