কলাপাড়ায় আয়রন ব্রিজ ভেঙ্গে পাঁচ গ্রামের মানুষ বিপাকে

আনোয়ার হোসেন আনু, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ার পাখিমারা খালের ওপর পাখিমারা থেকে কুমিরমারাসহ চারটি গ্রামে চলাচলের একমাত্র আয়রণ ব্রিজটি বিধ্বস্ত হয়ে পরে গেছে। বুধবার (৫ আগষ্ট) রাত ১০টার দিকে ব্রিজটি ভেঙ্গে খালের মধ্যে ডুবে গেছে।

১১৬ মিটার দীর্ঘ ব্রিজটির প্রায় ১০০ মিটার ধসে পড়ে ডুবে গেছে। তবে এতে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। সবজির গ্রাম খ্যাত কুমিরমারা, মজিদপুর, বাইনতলা, এলেমপুর ও ফরিদগঞ্জ গ্রামের সবজিচাষীরা এখন চরম বিপাকে পড়েছেন। কারন এ ব্রিজটি পেরিয়ে উৎপাদিত সবজি কৃষকরা বাজারজাত করতেন।

এসব গ্রামের কৃষকরা ১২ মাস সবজির আবাদ করছেন। ফলে সবজি চাষীসহ স্কুল-মাদ্রাসাগামী ছাত্র-ছাত্রী এবং সাধারণ মানুষ এখন চরম বিপাকে পড়েছেন। হতাশা ব্যক্ত করেছেন চাষীরা। সবজি চাষী জাকির হোসেন জানান, এ ব্রিজটি ভেঙ্গে যাওয়ায় তাদের জীবন-জীবিকায় প্রভাব পড়বে।

পাখিমারা খালের ওপর ব্রিজটি ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে নির্মিত হয়। দুই দফায় স্ট্রাকচার নির্মাণে ৩০ লাখ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়। কলাপাড়া উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর ব্রিজটি নির্মাণ করে। পুরনো আয়রণ ব্রিজের মালামাল ব্যবহারের কারণে ব্রিজটি ধসে পড়েছে বলে স্থানীয় লোকজন জানান। এছাড়া বহু ক্রস এ্যাঙ্গেল দেয়া হয়নি।

আয়রন খুটিগুলো যথাযথভাবে বসানো হয়নি বলেও জানা গেছে। তবে ওই স্পটে জরুরী ভাবে একটি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণের দাবি করেছেন সাধারণ মানুষ। এলজিইডির প্রকৌশলী মোঃ দেলোয়ার হোসেন জানান, ওই স্থানে আগেই একটি কাঠের সেতু ছিল। পরে উপজেলা পরিষদের সিদ্ধান্তে চাকামইয়াগামী পুরনো আয়রন ব্রিজের মালামাল দিয়ে ওই ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়েছিল।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক জানান, তিনি বিষয়টি জেনেছেন। এলজিইডি কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে।