করোনা মোকাবেলায় জনসনের করোনা টিকার এক ডোজই কার্যকর: এফডিএ

করোনা মোকাবেলায় জনসন এণ্ড জনসনের এক ডোজ টিকা যথেষ্ট কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে। রোগিদের হাসপাতালে ভর্তি ও মৃত্যুহার কমাতে সহায়ক এটি, জানায় মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন-এফডিএ। ধারণা করা হচ্ছে, এ সপ্তাহেই দেয়া হতে পারে অনুমোদন।

যুক্তরাষ্ট্রে তৃতীয় ভ্যাকসিন হিসেবে অনুমোদন পাবে এটি। প্রথম ধাপে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ লাখ টিকার প্রয়োগের অনুমতি দিতে পারে দেশটি।

করোনাভাইরাসের মহামারি অবসানে বর্তমানে যেসব টিকা ব্যবহার করা হচ্ছে তার প্রতিটিরই দুই ডোজ করে নিতে হচ্ছে। একটি মাত্র ডোজ ব্যবহার করে করোনা থেকে সুরক্ষা পাওয়া গেলে মহামারি ঠেকানো আরও সহজ হয়ে উঠবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের প্রকাশ করা নথিতে বলা হয়েছে বিশ্ব জুড়ে ৪৪ হাজার মানুষের ওপর চালানো পরীক্ষায় দেখা গেছে জনসন অ্যান্ড জনসনের এক ডোজের টিকাটি কোভিড-১৯ এ মারাত্মক অসুস্থতা থেকে রক্ষায় ৬৬ শতাংশ কার্যকর। এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধেও টিকাটি ৬৪ শতাংশ কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে।

এদিকে করোনা মোকাবেলায় ফাইজারের ভ্যাকসিন ৯৪ শতাংশ কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে। ইসরায়েলের এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

তবে অঞ্চলভেদে টিকার কার্যকারিতার ভিন্নতা দেখা গেছে। যুক্তরাষ্ট্রে যেখানে টিকার কার্যকারিতা ৭২ শতাংশ সেখানে লাতিন আমেরিকায় এই টিকার কার্যকারিতার হার ৬৬ শতাংশ।

আবার দক্ষিণ আফ্রিকায় এই টিকার কার্যকারিতা ৫৭ শতাংশ বলে প্রমাণিত হয়েছে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনা ভাইরাসের একটি নতুন ধরন শনাক্ত হয়েছে।

ট্রায়ালে আরও দেখা গেছে করোনাভাইরাসে গুরুতর অসুস্থতার ক্ষেত্রে জনসন অ্যান্ড জনসনের এই টিকার কার্যকারিতা গড়ে ৮৫ শতাংশ।