করোনায় বহিরাগতদের আগমন নিয়ে আতংকিত বেলকুচিবাসী

পারভেজ আলী, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সারাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রদূর্ভাবে মানব জীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। মানুষ প্রতিনিয়ত প্রাণ নিয়ে সংশয়ের মধ্যে দিন পার করছে। দেশের এমন প্রতিকূল পরিবেশের মাঝে করোনা ভাইরাস যাতে সংক্রমিত যাতে না হয় সে বিষয়ে তৎপর রয়েছে প্রশাসন। অনেক জায়গায় ঘোষণা লকডাউন করা হয়েছে। তবে মানুষের মাঝে এখনও সচেতনতার অভাব পরিলক্ষিত হয়েছে সিরাজগঞ্জের বেলকুচির বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চলের মানুষের মাঝে।

প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ও পৌর এলাকায় সেনা বাহিনী ও পুলিশ সদস্যের সমন্বয়ে মানুষকে সচেতনা ও ঘরমুখী করার প্রয়াস চালালেও তাদের খেয়াল খুশি মত চলা বন্ধ হচ্ছে না কিছুতেই। তার সাথে যুক্ত হয়েছে এই উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে বাহিরাগতদের আগমন। যাতে করে অতংকিত হচ্ছে সমাজের সচেতন মহল। বিশেষ করে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যারা কর্মরত ছিলেন তাদের আগমন ও অবাধ বিচরণ করা নিয়ে এই উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের মানুষের মাঝে করোনার ঝুকি বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন অনেকেই। এদিকে এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক সাজ্জাদুল হক রেজা বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমিত না হয় সে জন্য সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে সচেতন হতে হবে। এটা যাতে ছরিয়ে না পরে সে খেয়াল রাখা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। যারা বাহির থেকে আমাদের এলাকায় প্রবেশ করেছেন তারা আমাদেরই আপনজন। তাই আমি তাদেরকে অনুরোধ করবো তারা যেব এলোমেল ঘোরাফেরা না করে নিজ দায়িত্বে বাড়িতে অবস্থান করে। কারণ এই এলাকা তাদের আর আমি বিশ্বাস করি তারা এ অঞ্চলের মানুষের মাঝে করোনা ভাইরাস সংক্রমন না হয় সে দিকে অবশ্যই নজর দেবে।

ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রশিদ শামীম জানান, মানুষের মাঝে এমনিতেই করোনার আতংক কাজ করছে। তার সাথে যুক্ত হয়েছে এই এলাকায় বহিরাগতদের আগমন। বিশেষ করে যারা নারায়ণগঞ্জ এলাকায় কর্মরত ছিল তাদের আগমন নিয়ে গ্রামের মানুষ মাঝে বেশি আতংক কাজ করছে । কেননা নারায়ণগঞ্জ এলাকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেশি। তারা সেই আক্রান্ত এলাকা থেকে এসেছে আর যে ভাবে অবাদে ঘোরা ফেরা করছেন তাতে করোনা ভাইরাস সক্রমিত হবে না এটা কেউ বলতে পারছে না। এই বিষয়ে সবার নজর দেওয়া উচিত। অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিফাত ই জাহান প্রতিবেদকের কাছে জানান, আমরা বহিরাগতদের আগমন নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে কথা বলেছি। তারা প্রতিটি গ্রামে বহিরাগতদের তালিকার কাজ চলছে। তালিকার কাজ শেষ হলে হলে আমার উর্ধতন মহলে অবহিত করবো। উর্ধতন মহল থেকে যে নির্দেশনা আসবে সে অনুপাতে কাজ হবে।