করোনার প্রভাবে জনশুন্য সিনেমা-হল

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে নানা রকম ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো। প্রেক্ষাগৃহগুলোও সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে। প্রেক্ষাগৃহের প্রবেশদ্বারে দর্শককে থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে পরীক্ষা করা, টিকিট কাউন্টারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখা, মাস্ক ও গ্লাভস পরে টাকা ও টিকিট আদান-প্রদানের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

দেশের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে এই মুহূর্তে চলছে শাকিব খান অভিনীত দুটি ছবি—‘বীর’ ও ‘শাহেনশাহ’। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি প্রেক্ষাগৃহে চলছে পরমব্রত ও তিশার ‘হলুদ বনি’, আনিসুর রহমান মিলনের ‘চল যাই’ এবং নিরব ও প্রিয়াঙ্কার ‘হৃদয় জুড়ে’ ছবিগুলো। গত শনিবার বাংলাদেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী পাওয়ার খবরে প্রেক্ষাগৃহগুলোতে কমে গেছে দর্শক।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সহসভাপতি মিঞা আলাউদ্দিন বলেন,‘অনেক হলমালিকই এখন তাঁদের করণীয় জানতে ফোন করেছিলেন। প্রাথমিকভাবে বলেছি, দর্শকদের মাস্ক পরে হলে আসতে হবে। মাস্ক ব্যবহার না করলে টিকিট বিক্রি করা হবে না। টিকিট ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়কেই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। এ ছাড়া মিলনায়তনের প্রবেশমুখে থারমাল স্ক্যানারের ব্যবস্থা করতেও বলেছি।’

সিনেপ্লেক্সগুলোতে চলছে একাধিক ছবি। স্টার সিনেপ্লেক্স বসুন্ধরা ও সীমান্ত সম্ভারে দুটি বাংলা ছবি—‘হলুদ বনি’, ‘চল যাই’সহ চলছে বেশ কয়েকটি ইংরেজি ছবি।