জোন ভিত্তিক লকডাউন ঘোষণার সাথে সাথেই বেড়ে চলছে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম

এনাম রহমান, সিলেট জেলা প্রতিনিধি:সরকারের জোনভিত্তিক লকডাউন ঘোষণার পরপরই সিলেটসহ সারা দেশে বেড়ে যাচ্ছে নিত্য পণ্যের দাম। লকডাউন ঘোষণায় নতুন করে বাড়তে শুরু করেছে চাল, ডাল, পেঁয়াজ, শাকসবজিসহ নিত্য পণ্যের দাম। এদিকে নিত্যপণ্য কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ায় কাঁচা বাজারগুলোতে স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়টি শিথিল হয়ে পড়েছে। চাল, ডাল, পেঁয়াজ ও রসুনের সঙ্গে সিলেটের বাজারগুলোতে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি।

আলু, পটোল, বেগুন, বরবটি, ঢেঁড়শ, ধন্দুল, ঝিঙে, করলা, পেঁপেসহ প্রায় সব ধরনের সবজির দাম সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে। ফলে নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট আরো বেড়েছে। বোরো মৌসুমের ধান কাটা সবে শেষ হয়েছে। চালের এখন ভরা মৌসুম। কিন্তু বাজারে স্বস্তি নেই। পবিত্র ঈদুল ফিতরের পর পাইকারি বাজারে চালের দাম এক দফা বেড়েছিল। তার প্রভাব এখন পড়েছে খুচরা বাজারে। চড়া সবজি, ডিম ও মুরগির দামও। আরেকটু বেড়েছে দেশি পেঁয়াজের দাম। তবে স্থিতিশীল রসুন ও আদার বাজার। কমতির দিকে চিনি ও ভোজ্যতেলের দাম। সিলেটের বিভিন্ন পাইকারি ও খুচরা বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত দুদিনে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে বয়লার মুরগির দাম।

চলতি সপ্তাহে একাধিক দফায় দাম বেড়ে বয়লার মুরগির কেজি আবার ১৭০ টাকায় উঠেছে, যা গত শনিবার ছিল ১৪০ টাকার মধ্যে। বেড়েছে সব ধরনের চালের দামও মোটা চালের দাম বেড়ে কেজি ৩৮ থেকে ৪৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে, যা দুদিন আগে ছিল ৩৪ থেকে ৩৬ টাকার মধ্যে। ৪০ থেকে ৪২ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া মাঝারি মানের চালের দাম বেড়ে হয়েছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। চিকন চালের দাম বেড়ে কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৫৬ থেকে ৬২ টাকা, যা আগে ছিল ৫৪ থেকে ৫৮ টাকার মধ্যে। দুদিন আগে ২৬ থেকে ২৮ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া আলুর দাম বেড়ে ৩০ টাকা হয়েছে।

এদিকে দাম বেড়েছে দেশি পেঁয়াজের ৪০ টাকা থেকে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়ে এখন ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুনের পাশাপাশি দাম বেড়েছে বিদেশি রসুনেরও ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বিদেশি রসুনের দাম বেড়ে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা হয়েছে। ৯৫ থেকে ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া মাঝারি দানার মসুর ডালের দাম বেড়ে ১০০ থেকে ১১৫ টাকা হয়েছে। গত দুদিনের দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ছোলাও। রোজার পর দাম কমে ৬০ টাকায় নেমে আসা ছোলার কেজি বেড়ে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা হয়েছে।

এদিকে, সবজি বাজারে কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে বাজারে বর্তমানে প্রতি কেজি পটোল বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫৫ টাকা, ঝিঙে-চিচিঙ্গা ৪০ থেকে ৬০ টাকা, কাকরোল ৬০ থেকে ৭০ টাকা, করলা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কচুরছড়া ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হচ্ছে। কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে প্রতি কেজি টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপে ৪০ থেকে ৬০ টাকা, ঢেঁড়শ ৪০ থেকে ৫০ টাকা, বেগুন ৪০ থেকে ৮০ টাকা, কাঁচামরিচ ৫০ থেকে ৬০ টাকা।

মিষ্টিকুমড়া ৩০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হচ্ছে। দাম বাড়ার বিষয়ে সিলেটের সবজি বাজারের রবিউল নামের এক বিক্রেতা বলেন, ‘বর্তমানে অনেক সবজির সিজন না হওয়ায় সেগুলোর বাড়তি দাম রয়েছে পাইকারি বাজারে। তা ছাড়া সবজির দাম আমদানির ওপর নির্ভর করে। বাজারে মালামাল বেশি হলে দাম কমে, মালের সংকট হলে দাম বেড়ে যায়। পাইকারি বাজারের দাম অনুপাতে আমরা খুচরা বাজারে মালামাল বিক্রি করি।