কনে অপহরণের অভিযোগে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ তিন জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের।

বিয়ের আসর থেকে কনেকে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগে পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ তার অন্য দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পিরোজপুর পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন শনিবার দিবাগত রাতে (১৩ সেপ্টেম্বর) পিরোজপুর সদর থানায় মামলাটি দায়ের করেন  বলে জানান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাঃ নূরুল ইসলাম বাদল।

এ মামলায় আসামী করা হয়েছে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ অনিরুজ্জামান অনিক (২৮) এবং তার সহযোগী শহরের ধুপপাশা এলাকার আবুল কালাম এর ছেলে আব্দুল আলীম (২৬) ও শাওনকে (২৪)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে শহরের শিক্ষা অফিস সড়কের বাসায় দেলোয়ার হোসেন তার মেয়ের বিয়ের আয়োজন করেন। এ সময় হঠাৎ করে অনিক তার অন্য দুই সহযোগী আলীম ও শাওনকে নিয়ে জোরপূর্বক ওই বাড়িতে প্রবেশ করে তার মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে আসার চেষ্টা করলে সেখানে উপস্থিত ব্যক্তিরা তাদের বাধা দেয়। এরপর তারা সেখান থেকে চলে আসে। তবে ওই বাড়ি ত্যাগ করার পূর্বে অনিক ও তার সহযোগীরা অস্ত্র দেখিয়ে তাদেরকে বিভিন্ন ধরণের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এবং দেলোয়ার হোসেন এর মেয়েকে আলীমের সাথে বিয়ে না দিলে বড় ধরণের ক্ষতি করার হুমকি দেয়।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে অনিকের বাবা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সভাপতি আক্তারুজ্জামান ফুলু জানান, দেলোয়ার হোসেন এর মেয়ে এবং আব্দুল আলীম এর মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক আছে। দেলোয়ার জোরপূর্বক তার মেয়েকে অন্যত্র বিয়ে দিচ্ছিলেন। তার মেয়ে বিষয়টি অনিককে জানানোর পর সে তার বন্ধু আলীমকে নিয়ে ওই বাড়িতে যায় যাতে এর একটি সুষ্ঠ সমাধান হয়। তবে সেখানে অপহরণ চেষ্টার কোন ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেন তিনি। তার অভিযোগ রাজনৈতিকভাবে তাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এ ঘটনাটিকে অতিরঞ্জিত করা হয়েছে।

এছাড়া এ বিষয়টি সুষ্ঠ সমাধানের জন্য মেয়ের বাবার সাথে তার একাধিকবার যোগাযোগ হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, দেলোয়ার হোসেন এর পরিবার তাদের পূর্ব পরিচিত এবং আত্মীয়।