কচুয়ায় ফোন পেলেই কৃষকের পাশে ছুটে যান ‘হ্যালো ছাত্রলীগ’, খুশিতে আত্মহারা কৃষক

আফাজ উদ্দিন মানিক, কচুয়া (চাঁদপুর) প্রতিনিধি: ‘কৃষক বাঁচলে, দেশ বাঁচবে’ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের ভয়ে ঘরবন্দি সব মানুষ। পেটের দায় পড়লেও কৃষক ও শ্রমিকরাও প্রাণের ভয়ে গৃহবন্দি। এতে শ্রমিক সংকটে পাকা ধান কাটতে না পারা নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় কৃষক। চলতি মৌসমের আগাম ইরি-বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। তবে ধানের বাম্পার ফলন হলেও করোনা আতংকে ধানকাটা শ্রমিক সঙ্কট দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি প্রান্তিক কৃষকদের ধান পাকলেও হাতে ধান কাটার টাকা নেই।

এ অবস্থায় চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জহির উদ্দিন মিজি ও সাধারন সম্পাদক মো. সাদ্দাম হোসেন খানের নির্দেশে বই-খাতা ঘরে রেখে, হাতে হাতে ধান কাটার কাচি নিয়ে শ্রমিক সঙ্কটে থাকা এলাকা গুলোতে ধান কেটে কৃষককে সহায়তা করছেন চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কমিটি ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ‘হ্যালো ছাত্রলীগের নেকতাকর্মীরা’। একই সঙ্গে পাকা ধান স্বেচ্ছাশ্রমে কেটে মেশিন দিয়ে মাড়িয়ে ঘরে তুলে দিচ্ছেন, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা । বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ছাত্রলীগ যেন, কৃষকের শেষ ভরসা।

২২ এপ্রিল বুধবার চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার ৩নং বিতারা ইউনিয়নের বাইছারা গ্রামের সমস্যাগ্রস্থ কৃষক মো. ওসমান গনির প্রত্যন্ত দূর্গম এলাকা গুঘরার বিলের ৩০ শতাংশ জমির পাকা ধান স্বেচ্ছাশ্রমে কেটে দিয়েছেন উপজেলা ছাত্রলীগের ‘হ্যালো ছাত্রলীগ স্বেচ্ছাসেবী নেতাকর্মীরা’। এমন ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগে প্রশংসায় ভাসছেন কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবীরা। কৃষকের এই ধান কাটা কার্যক্রমে অংশ নেন, কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. সালাউদ্দিন সরকার, যুগ্ম আহবায়ক ফয়সাল আহমেদ ভূঁইয়া, সদস্য আরিফ হোসেন, সালমান চৌধুরী কাইয়ুম, আবু ইউসুফ মজুমদার, মো. কামরুল হাসান মজুমদার, সোহাগ সরকার প্রমুখ।

কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. সালাউদ্দিন সরকার জানান, করোনা ভাইরাসের কারনে আজ দেশের সাধারন মানুষ তথা কৃষক-শ্রমিক দিশেহারা। মাঠে কৃষকের স্বপ্নের সোলানী ধান পাকলেও ধান কাটার মতো অনেকের কাছে নগদ টাকা নেই।

তাই প্রিয় নেতা সাবেক সফল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড.মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি, প্রধানমন্ত্রীর স্নেহভাজন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের নিদের্শে ২ ঘন্টার মাথায় অসহায় কৃষকের পাশে মানবতার হাত বাড়িয়েছে ছাত্রলীগ। আমরা ছাত্রলীগ দেশের ক্রান্তিলগ্নে দেশ, জাতি ও কৃষকদের স্বার্থ রক্ষার জন্য যে কোন ত্যাগ শিকার করতে প্রস্তুত।

তিনি আরো বলেন- চলমান করেনা পরিস্থিতিতে শ্রমিক সংকটে পড়েছেন কৃষকরা। মানবিক দিক বিবেচনায় সমস্যাগ্রস্থ কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছি। তিনি আরো জানান- কচুয়ার অন্য যে কোন কৃষকের ধান কেটে দেয়ার প্রয়োজন মনে হলে আমাদের হটলাইন ০১৮১৪-৪৪৬৭২৩,সিনি. যুগ্ম আহবায়ক সোহাগ উদ্দিন ০১৮১৪-৩৯৫৯০২ নম্বরে যোগাযোগ করলে হ্যালো ছাত্রলীগ কর্মীরা আন্তরিক ভাবে সাড়া দেয়ার চেষ্টা করব। প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি- সাধারন সম্পাদকের নেতৃত্বে প্রস্তুত রয়েছে ‘হ্যালো ছাত্রলীগ’।

দেশের সংকটময় মুহর্তে কৃষকদের সহায়তায় এমন সময়ের তরুন ও যুব সমাজকে এগিয়ে আসতে আহবান জানান তিনি।