এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে সৎ মেয়ে গ্রেপ্তার

সাভারের আশুলিয়ায় শেলী সুলতানা নামে এক গৃহবধূকে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগে তার সৎ মেয়েকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এসময় আহত অবস্থায় নিহতের ছেলে সজিবকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এঘটনায় নিহতের স্বামী টিপু সুলতান বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, রবিবার গভীর রাতে আশুলিয়ার দক্ষিণ বাইপাইল চারালপাড়া এলাকায় এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।

নিহতের প্রতিবেশীরা জানায়, রবিবার সন্ধ্যায় ওই নারীর সৎ মেয়ে সানজিদা আক্তার ও অজ্ঞাত দুই পুরুষ তার বাড়িতে বেড়াতে আসে। এসময় বড় ছেলে সজিবও বাসায় ছিলেন। পরে রাতে শেলী সুলতানা নামে ওই নারীকে হত্যার পর পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে সানজিদা ও অজ্ঞাত দুই পুরুষ। এসময় নিহত নারীর ছেলে সজিবের চিৎকারে স্থানীয়রা ধাওয়া দিয়ে সানজিদা আক্তার নামে ওই নারীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। তবে বাকীরা পালিয়ে যায়। এসময় আহত অবস্থায় সজিবকে উদ্ধার করে নিকটস্থ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
তারা আরো জানায়, নিহত ওই নারী শান্ত স্বভাবের ছিলেন। তার সাথে প্রতিবেশীদের কারো কোন বিরোধ ছিলো না।

নিহতের মেয়ে ফাতেমা তার মা’কে কারা হত্যা করেছে সে ব্যাপারে কিছু বলতে না পারলেও হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন।

এই ঘটনায় নিহতের স্বামী টিপু সুলতান বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তবে পারিবারিক দ্বন্দে ওই নারীকে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশ জানালেও সে ব্যাপারে নিশ্চিত করে কিছুই জানায়নি। এঘটনায় গ্রেপ্তার সানজিদা আক্তারকে রিমান্ড চেয়ে সোমবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হবে বলে পুলিশ জানালেও ক্যামেরার সামনে কোন কর্মকর্তা কথা বলতে রাজি হননি। এদিকে সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মেয়ে সাথী বেগম ছাড়া পরিবারের অন্য কাউকে পাওয়া যায়নি। একই সাথে আহত সজিবকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

গার্মেন্ট কর্মকর্তা টিপু সুলতানের স্ত্রী নিহত শেলী সুলতানা দক্ষিণ বাইপাইলের নিজ বাসায় তার ছেলেকে নিয়ে বসবাস করতেন। এদিকে স্বামী টিপু সুলতানের আরো দুই স্ত্রী রয়েছে। তবে তারা অন্য বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তবে ঘটনার দিন টিপু সুলতান তার দেশের বাড়ি কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় অবস্থান করছিলেন বলে জানা গেছে।