ইয়াসমিন ধর্ষন ও হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী নেতা এমপি গোপালন

মোঃ নাজমুল ইসলাম নয়ন, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরে ইয়াসমিন ট্রাজেডির গণ আন্দোলনের ২৫ বছর পূতি হলো। আন্দোলনে শহীদের উদ্দেশ্যে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দশমাইল পূর্ব সাদিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শহীদ ‘সামু-কাদের-সিরাজ’ একাডেমিক ভবনে শহীদ ‘সামু-কাদের-সিরাজ’ স্মরণে স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইয়াসমিন ধর্ষন ও হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী নেতা ও দিনাজপুর-১ আসন এর জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, বাংলাদেশে প্রতিবছর ২৪ আগস্ট নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস পালন করা হয়। কিন্তু আজও কি ধর্ষনের ঘটনা কমেছে ? এর কারণ হলো মামলার দীর্ঘসুত্রতা। দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলার কারণে অপরাধীরা পার পেয়ে যায়। তাই নারী-শিশু নির্যাতন ও ধর্ষন মামলা গুলো বিশেষ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি, নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে জিরো টলারেন্সে নিয়ে আসার জন্য নিরলসভাবে কাজ করছেন।

শহীদ সামু-কাদের-সিরাজ স্মরণ কমিটির আহবায়ক মো. মজিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ বকসী বাচ্চু, সুন্দরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শরিফউদ্দিন, সুন্দরপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মো. হামিদুল ইসলাম প্রমুখ্য ।

উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালের ২৪ আগস্ট কিছু বিপথগামী পুলিশ সদস্য ইয়াসমিনকে ধর্ষনের পর শ্বাস রোধ করে হত্যা করে। তারই প্রতিবাদে যে আন্দোলন গড়ে উঠেছিল তার চূড়ান্ত রুপ নেয় ২৭ আগস্ট। সেদিন বিক্ষুব্ধ জনতার মিছিলে পুলিশের গুলিতে সামু, কাদের, সিরাজসহ ৭ জন নিহত হয়। সেই থেকে তাদের স্মরণে ২৭ শে আগস্ট স্মরণ সভা পালিত হয়ে আসছে।