আশুলিয়ায় এক পোশাক শ্রমিককে গুলি করার অভিযোগে এক যুবলীগ কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ

মৃদুল ধর ভাবন, আশুলিয়া প্রতিনিধি: সাভারের আশুলিয়ায় এক পোশাক শ্রমিককে গুলি করে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন লুটপাটের অভিযোগে আশুলিয়া থানা যুবলীগের কথিত সদস্য সোহাগ মুন্সীকে (২৮) আটক করেছে পুলিশ।

আজ গভীর রাতে আশুলিয়ার দক্ষিণ বাইপাইল এলাকার নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করে আশুলিয়া থানা পুলিশ। আটক সোহাগ মুন্সী দক্ষিণ বাইপাইল এলাকার হরমুজ আলীর ছেলে। পুলিশ বলছে,গত ২০ সেপ্টেম্বর রাতে আশুলিয়ার গাজীরচট আড়িয়ারার মোড় এলাকায় স্থানীয় নার্গিস সোয়েটারের শ্রমিক নুর আলমকে গুলি ও আরও পাঁচজনকে পিটিয়ে আহত করে একটি পোশাক কারখানা ভেঙ্গে তাদের সঙ্গে থাকা নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন লুটপাট করে পালিয়ে যায় ওই এলাকার মাদক ব্যবসায়ী রিপন,টিপু ও শামিম।

পরে আহতরা আশুলিয়া থানা কথিত যুবলীগ কর্মী সোহাগ মুন্সীর নির্দেশে মাদক ব্যবসায়ীরা তাদেরকে গুলি ও পিটিয়ে আহত করেছে আশুলিয়া থানায় গতকাল রাতে অভিযোগ করলে পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে সোহাগ মুন্সীর সংশ্রিষ্টতার প্রমাণ পায়। পরে গতকাল রাতেই আশুলিয়ার দক্ষিণ বাইপাইল এলাকার নিজ বাড়ি থেকে সোহাগ মুন্সীকে আটক করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

পুলিশ আরও জানায়,বর্তমানে কথিত যুবলীগ কর্মমী সোহাগ মুন্সী আশুলিয়া থানা হেফাজতে রয়েছে। সকালে তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করে দুপুরে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হবে বলে জানিয়েছে আশুলিয়া থানার এস আই ফজর আলী। এলাকাবাসী জানায়, আটক যুবলীগ কর্মী সোহাগ মুন্সীর নামে চাঁদাবাজি, ধর্ষণসহ নানা অভিযোগে আশুলিয়া থানায় বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।

নানা অপকর্মে জড়িত থাকলেও যুবলীগের নাম ভাঙিয়ে এলাকায় দাপিয়ে বেড়ান সোহাগ। সোহাগ মুন্সীকে আটক করায় সন্তোষ প্রকাশ করে তার কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।