আলগী বাজারের বিভিন্ন স্পটে তৈরি হয়েছে মশা বিস্তারের উৎস

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, হাইমচরের প্রাণকেন্দ্র আলগী বাজারের বিভিন্ন স্পটে ময়লা আবর্জনা স্তূপ করায় তৈরি হয়েছে মশা বিস্তারের উৎস। দোকানের ময়লা আবর্জনা ফেলা ও ফুটপাতে মাছ, কাঁচাবাজার সহ বিভিন্ন দোকান বসানোর কারনে রাস্তার পাশেই তৈরি হচ্ছে নর্দমা। ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ, বাড়ছে জনদুর্ভোগ। বাজারে মালি থাকলেও সঠিকভাবে পালন করছে না দায়িত্ব।

তারা নিয়মিত টাকা নিচ্ছে দোকানদার ও ব্যবসায়িদের কাছ থেকে। কিন্তু দোকানের সামনের ধুলাবালি, ময়লা, আবর্জনা ব্যতীত স্তুপের কোনো ময়লা সরানো হয়না। তাই, বাজারের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন স্থানে ধীরে ধীরে তৈরি হচ্ছে মশা বিস্তারের মিনি কারখানা। ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ আর নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। সরেজমিনে দেখা গেছে, ক্রেতা, বিক্রেতা সহ সাধারণ মানুষ বাজারে আসা-যাওয়ার পথে উদাসীনতার কারনে নিজেদের ব্যবহারে উচ্ছিষ্ট অংশ ফেলছে যায়গায় জায়গায়।

এতে নোংরা হয় পরিবেশ। ফুটপাতে মাছ, কাঁচাবাজার সহ সৃজনাল ফলের ব্যবসা নিয়ে বসছেন অসাধু ব্যবসায়িগন। তাদের বেচা-কেনা শেষে খোলা রাস্তায়-ই ফেলে রাখেন উচ্ছিষ্ট অংশ। এভাবেই একসময় তৈরি হয় ময়লার স্তুপ। বাজারের দোকানদার ও স্থায়ী ব্যবসায়িগন বাজার কমিটি ও যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করে বলেন- যত্রতত্র ফুটপাতে দোকান বসানোর কারনে রাস্তার পাশে বিভিন্ন স্পটে মশা বিস্তারের উৎস তৈরি হচ্ছে। তাই বাজারের সৌন্দর্য ও পরিবেশ রক্ষার্থে কার্যকর প্রদক্ষেপ নিয়ে দূষণমুক্ত বাজার গঠনে ভূমিকা রাখবেন বলে আশাবাদী।

জানা যায়, বাজারের সৌন্দর্য ও পরিবেশ রক্ষার্থে ময়লা আবর্জনা অপসারণে তৎপর ছিলেন হাইমচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী। তিনি নিজ উদ্যোগে সেচ্ছাসেবক ও দক্ষ কর্মীদের সাথে নিয়ে বাজারের ড্রেন, জমে থাকা পানি ও ময়লা পরিষ্কারে কাজ করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকায় দায়িত্ব নিয়ে কেউ এ কাজটি করেনি।