আম্পান বাগেরহাটে আশ্রয় কেন্দ্রে যেতে শুরু করেছে মানুষ, শুরু হয়েছে ঝড়ো বাতাস

 মাহফুজুর রহমান বাপ্পী, বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে বুধবার সকাল থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টিপাতের সাথে তীব্র বাতাস বইতে শুরু করেছে। সেই সাথে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ঘোষণায় পর জেলার উপকূলীয় এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। উপকুলীয় এলাকার নদী ও এর আশপাশের মানুষ গবাদিপশুসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে যেতে শুরু করেছে নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে।

বুধবার দুপুর ১টা পর্যন্ত বাগেরহাটের ৯৭৭টি আশ্রয় কেন্দ্রে নারী-শিশু ও বৃদ্ধসহ দেড় লাখ মানুষ ও ২০ হাজার গবাদিপশু আশ্রয় নিয়েছে বলে বাগেরহাট জেলা প্রশাসন সূত্রে জানাগেছে। বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো: মামুনুর রশীদ বলেন, সময়ের সাথে সাথে বাগেরহাটে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাব পরতে শুরু করেছে। সকাল থেকে বৃষ্টির সাথে বাতাসের তীব্রতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। সাধারন মানুষ তাদের গবাদিপশু ও প্রয়োজনীয় মালামালসহ আশ্রয় কেন্দ্রে গুলোতে আসছে। ইতোমধ্যেই এক লক্ষ ৫০ হাজার মানুষ ও ২০ হাজার গবাদিপশু আশ্রয় কেন্দ্রে উঠেছে। সময়ের সাথে সাথে আশ্রয় কেন্দ্রে গুলোতে মানুষের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এছাড়া করোনা পরিস্থিতির কারনে আমরা আশ্রয় কেন্দ্রে গুলো সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে কাজ করছি। সেজন্য ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রেগুলোর পাশাপাশি জেলারর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাকা ভবনগুলো আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এসব আশ্রয় কেন্দ্রে ৪ লাখ ৮৬ হাজার ২৭৭ জন মানুষ ও প্রায় ৮৫ হাজার গবাদিপশু আশ্রয় নিতে পারবে। কেন্দ্রে গুলোতে আশ্রয় নেয়া জনসাধারনের মাঝে মাক্স, গ্লোভস ও হ্যান্ডস্যানিটাইজার বিতরন করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় ১৩ মে.টন চাল নগত ৩ লাখ টাকা, শিশু খাদ্যের জন্য ২ লাখ. গো খাদ্যের জন্য ২ লাখ টাকা ও ২ হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার ৮৪টি মেডিকেল টিম ও ৭টি ফায়ার সার্ভিস টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলায় রেড ক্রিসেন্ট, স্কাউটস, সিপিপির মোট ১১ হাজার ৭০৮ জন স্বেচ্ছাসেক প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৮৫ টি মেডিকেল টিম। খোলা হয়েছে ১০টি কন্ট্রোল রুম।