আখাউড়ায় ১৩ দিন করোনা আক্রান্তের খবর গোপন করেছেন এক ব্যবসায়ী

জহিরুল ইসলাম সাগর, আখাউড়া প্রতিনিধিঃ আখাউড়া উপজেলার মোগড়া বাজারের এক ব্যবসায়ির শরীরে করোনা শনাক্ত হওয়ার খবর গোপন রাখলেন ১৩ দিন । গত ২৪ মে ঢাকায় হার্ট সার্জারি করতে গিয়ে তার শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়।

তাপস সাহা নামের ওই ব্যাক্তি নতুন করে আখাউড়া হাসপাতালে নমুনা দিতে আসলে তার আক্রান্তের বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ায় তাকে হোম আইসোলেশনে দিয়েছেন। গতকাল রোববার রাতে উপজেলা প্রশাসন তার বাড়িসহর আশেপাশের বাড়িঘর লকডাউন ঘোষণা করেছে।

করোনা আক্রান্ত তাপস সাহার পুত্র কৌশিক সাহা জানান, তার বাবা তাপস কুমার সাহা হঠাৎ হার্টের রোগে আক্রান্ত হলে তাকে রাজধানী ঢাকা ধানমন্ডি ল্যাব এইড হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে হার্ট সার্জারীর পর শরীরে জ্বর আসলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহ করে। ২৪ মে রিপোর্টে তার শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। করোনা শনাক্তের পর ল্যাব এইড হাসপাতালের আইসোলেশনে কয়েকদিন থাকার পর ডাক্তার ছাড়পত্র দিলে তার বাবাকে ২৮ মে আখাউড়ায় হোম আইসোলেশনে রাখেন। ডাক্তারের পরামর্শে হোম আইসোলেশনে থাকায় তারা আখাউড়া হাসপাতাল কিংবা উপজেলা প্রশাসনকে বিষয়টি জানায়নি বলেও তিনি জানান। গত ৫ জুন শুক্রবার বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে অবগত করলে তারা নতুন করে নমুনা সংগ্রহ করেছে।

আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও ডা: শ্যামল চন্দ্র ভৌমিক জানায়, তাপস সাহার করোনা শনাক্ত হয় ঢাকায়, বাড়িতে এসে বিষয়টি গোপন রাখার পর গত শুক্রবার বিষয়টি জানালে স্বাস্থ্য বিভাগ তার নমুনা সংগ্রহ করে হোম আইসোলেশনে পাঠায়।

আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনা জানায়, হার্ট সার্জারী করার পর ঢাকায় তার করোনা শনাক্ত হলে সেখানকার ডাক্তার তাকে হোম আইসোলেশনে পাঠায়। কিন্তু বিষয়টি তারা গোপন করে রাখে। বিষয়টি প্রকাশের পর স্বাস্থ্য বিভাগ নমুনা সংগ্রহ করেছে। তার বাড়িঘরসহ আশপাশের বাড়িঘর লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।