অভিমান করে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

জয়নাল আবেদীন রিটন, ভৈরব প্রতিনিধি: পিতা মাতার সাথে অভিমান করে মোছা: শাপলা বেগম (১২) নামে মাদ্রসা শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। সে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া আব্দুল্লাপুর ইউনিয়নের উত্তর লক্ষীপুর গ্রামের মঞ্জিল মিয়ার মেয়ে। খবর পেয়ে আজ সোমবার লাশ উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করে।

পুলিশ জানায় ,শাপলা বেগম স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় পড়াশোনা করত । করোনা ভাইরাসের কারনে মাদ্রাসা বন্ধ থাকায় বাড়ীতে পিতা মাতার সাথে তার নিজ বাড়ীতে আবস্থান করছে । কোন এক বিষয় নিয়ে পিতা-মাতার সাথে অভিমান করে । অভিমানের এক পর্যয়ে নিজ গৃহে উরনা দিয়ে ঘরের ধর্নায় ঝুলতে থাকে । এক পর্যায়ে পরিবারের লোকজন টের পেয়ে জীবিত ভেবে কিশোরীকে বাজিতপুর জহিরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষনা করে। লোকজন থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানা নিয়ে এসে হিতের ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ মর্গে প্রেরন করে ।

কুলিয়ারচর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল হাই তালুকদার জানান, কিশোরী শাপলা কি কারনে আত্মহত্যা করেছে তা আমাদের স্পষ্ঠ ধারনা নেই । আমরা লাশ উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জের মর্গে পাঠিয়েছি । কেন বারো- তেরো বছরের কিশোরী অত্মহত্যা করেছে তা আমরা তদন্ত করে বের করার চেষ্ঠা করছি ।