অবশেষে কক্সবাজারে (অবঃ) সেনা হত্যায় মামলা, ৭ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ র‌্যাব’কে

স.ম.ইকবাল বাহার চৌধুরী, কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ অবশেষে বহু প্রত্যাশিত চাঞ্চল্যকর কক্সবাজারে সেনা বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোঃ রাশেদ খান হত্যার ঘটনায় টেকনাফের বাহারছরা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের প্রত্যাহারকৃত পরিদর্শক লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাসসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। কক্সবাজার টেকনাফ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বুধবার (৫ আগস্ট) সকাল ১০ টায় মামলাটি করেন মেজর (অবঃ) সিনহা মোঃ রাশেদ খানের বড়বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস।
মামলার প্রধান কৌশলী সিনিয়র আইনজীবী মোহাম্মদ মোস্তফা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মামলার শুনানি শেষে সন্তুষ্ট হয়ে আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে আদালত নির্দেশ দেন বিচারক তামান্না ফারাহ। মামলার তদন্ত করবে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন (র‌্যাব)। মামলার আসামী হলেন -টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাস, বাহারছরা তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী, এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, এএসআই টুটুল ও কনস্টেবল মোহাম্মদ মোস্তফা।
উল্লেখ্য যে, গত ৩১ আগস্ট রাত্রে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ রোডে মেজর সিনহা তাঁর কক্সবাজারমুখী প্রাইভেট কারটি নিয়ে টেকনাফের বাহারছরা শামলাপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের চেকপোস্টে পৌঁছালে গাড়িটি পুলিশ থামিয়ে দেয়। তখন তিনি উপর দিকে তার হাত তুলে তার প্রাইভেট কার থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে বাহারছরা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রর ইনচার্জ লিয়াকত আলী পরপর ৩ রাউন্ড গুলি করে হত্যা করে বলে সেনা সদর থেকে গণমাধ্যমে প্রেরিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়।
অন্যদিকে ঘটনা তদন্তে গত ২ আগস্ট চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোঃ মিজানুর রহমানকে আহবায়ক করে ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্ত্বা বিভাগ। ৪ আগষ্ট থেকে তদন্ত শুরু হয়েছে।