অনলাইন ক্লাস অব্যাহত রাখতে এন ইউ ভিসি’র জুম অ্যাপসে অধ্যক্ষদের সাথে মতবিনিময়

আশজাদ রসুল সিরাজী, গাজীপুর প্রতিনিধি: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর রশিদ বলেছেন, ‘কোভিড-১৯ মহামারী পরিস্থিতিতে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম শতভাগ নিশ্চিত করতে দেশের সকল কলেজকে একই ডিভাইসের আওতায় আনতে কাজ চলছে।

এই কার্যক্রম দ্রুত করতে আইসিটি মন্ত্রণালয়কে আমরা চিঠি দিয়েছি, তারা যেন আমাদের সকল কলেজকে একই কানেকটিভিটির আওতায় আনতে তরিত্ব পদক্ষেপ গ্রহণ করে। ২৯জুন(সোমবার) দুপুরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ৬৪ জেলার ৬৪ কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে অনলাইন সভায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন উপাচার্য। উপাচার্য বলেন, শিক্ষা কার্যক্রম নিরবিচ্ছিন্নভাবে পরিচালনার জন্য লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এলআইএস) চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

এটি নিয়ে ইউজিসি এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় কাজ করছে। আমরা এমন একটি ব্যবস্থা চালু করতে চাই যাতে দেশের সকল পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা খুব সহজে এমবি কিনতে পারে ও অনলাইন শিক্ষা-কার্যক্রমে যুক্ত হতে পারে। অনলাইনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ। এতে সারা দেশের ৬৪ জেলার ৬৪ কলেজের অধ্যক্ষবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন। গত রবিবার একই বিষয়ে ১৩টি শতবর্ষী কলেজ ও ৮ টি মডেল কলেজ নিয়ে অনলাইন সভা অনুষ্ঠিত হয়। কোভিড- ১৯ মহামারী পরিস্থিতির শুরুর দিকেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোতে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছিলেন উপাচার্য।

এই বৈঠকে উপাচার্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশনার আলোকে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কলেজের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করেন। সভায় কলেজগুলোর অধ্যক্ষবৃন্দ অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা তাদের সমস্যা, সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরেন। উপাচার্য সংশ্লিষ্ট কলেজের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, ‘অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সকল ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। কীভাবে এটিকে আরও বেগবান করা যায় সে বিষয়েও কাজ করছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

সভায় সার্বিক সমস্যা উত্তোরণে দিক নির্দেশনা দেন উপাচার্য। তিনি সংশ্লিষ্ট কলেজের অধ্যক্ষদেরকে বিরাজমান সমস্যা কাটিয়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম আরও জোরদার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। সভায় প্রো-উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: মশিউর রহমান, স্নাতকোত্তর শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রের ডিন প্রফেসর ড. মো: আনোয়ার হোসেন ও রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ও ডিন প্রফেসর ড. মো. নাসির উদ্দীন উপস্থিত ছিলেন।